দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে ধর্ষণ সাইফুর ও অর্জুন গ্রেপ্তার

প্রতিনিধি, সিলেট: সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান ও ৪ নম্বর আসামি অর্জুন লস্করকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল সকালে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে সাইফুল এবং ভোর ৫টার দিকে হবিগঞ্জের মাধবপুরের মনতলা থেকে অর্জুনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘পুলিশ গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সাইফুরকে গ্রেপ্তার করে। রোববার সকালে ছাতক খেয়াঘাট সংলগ্ন এলাকা দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় ছাতক থানার এসআই হাবিবুর রহমান পিপিএমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।’

গতকাল বেলা সাড়ে ১১টায় সিলেট জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল অর্জুনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে যাওয়ার চেষ্টা করছিল অর্জুন।

এ নিয়ে এই মামলার ছয় আসামির মধ্যে দুজন গ্রেপ্তার হলো। এখনও পলাতক রয়েছে সুনামগঞ্জ সদর থানার উমেদনগর গ্রামের তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮), হবিগঞ্জ সদর থানার বাগুনীপাড়ার শাহ মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি, সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই থানাধীন বড়নগদীপুর (জাগদল) গ্রামের রবিউল ইসলাম (২৫) এবং কানাইঘাটের গাছবাড়ি গ্রামের মাহফুজুর রহমান মাসুম (২৫)।

এর আগে এ ঘটনায় ছয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করে শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকালে শাহপরান থানায় মামলা করেছিলেন ওই গৃহবধূর স্বামী। ঘটনার পরই অভিযুক্তদের ধরতে সাঁড়াশি অভিযানে নামে পুলিশ। শুক্রবার রাত ২টার দিকে পুলিশ অভিযুক্ত সাইফুরের কক্ষ থেকে একটি পাইপগান, চারটি রামদা, একটি ছুরি ও দুটি লোহার পাইপ উদ্ধার করে।

জানা গেছে, গত শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় স্বামী-স্ত্রী এমসি কলেজে বেড়াতে যান। এ সময় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে ৫-৬ জন জোরপূর্বক কলেজের ছাত্রাবাসে নিয়ে যায় দম্পতিকে। সেখানে একটি কক্ষে স্বামীকে আটকে রেখে ১৯ বছরের গৃহবধূকে ধর্ষণ করে তারা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..