প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

এমসি কলেজে ধর্ষণ মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে যাচ্ছে

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গৃহবধূ ধর্ষণ মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। গতকাল রোববার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহিতুল হকের আদালতে শুনানি শেষে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের প্রক্রিয়ার কথা জানানো হয়। সূত্র: বিডিনিউজ।

আদালতের পিপি রাশিদা সাইদা খানম জানান, ৭ ফেব্রুয়ারি বাদীপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ ঘটনায় দায়ের করা ধর্ষণ মামলা, ওই গৃহবধূর স্বামীর কাছে চাঁদা দাবি ও ছিনতাইয়ের মামলা একসঙ্গে একই আদালতে বিচার করার আদেশ দেন হাইকোর্ট।

তিনি বলেন, উচ্চ আদালতের আদেশের পর মামলাটি সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়।’ জানান, ইতোমধ্যে এ-সংক্রান্ত নথিপত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। গেজেট প্রকাশের পর মামলাটির পরবর্তী কার্যক্রম শুরু হবে।

এর আগে ১৭ জানুয়ারি আট আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের মাধ্যমে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০২০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে টিলাগড় এলাকায় এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে আসা এক গৃহবধূকে ক্যাম্পাস থেকে তুলে ছাত্রাবাসে নিয়ে ধর্ষণ করেন কয়েক ছাত্রলীগ কর্মী। পরদিন সকালে ওই গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমানকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় আরও ২-৩ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

মামলায় গ্রেপ্তার আট আসামি আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। বহুল আলোচিত এ মামলায় ৪৯ জনকে সাক্ষী রাখা হয়েছে। ৩ ডিসেম্বর ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুরসহ আটজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।