বিশ্ব সংবাদ

এশিয়ার পুঁজিবাজার ঊর্ধ্বমুখী ডলারের দামও চড়া

শেয়ার বিজ ডেস্ক: টানা কয়েক দিনের পতনের পর গতকাল বৃহস্পতিবার এশিয়ার পুঁজিবাজারে বেশিরভাগ সূচকে ছিল ঊর্ধ্বমুখী। আর যুক্তরাষ্ট্র্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডের নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার পর মার্কিন ডলারের দামও ছিল শক্তিশালী অবস্থানে। দেশীয় প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠান এবং বাণিজ্যিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গত সপ্তাহে চীন সরকারের কঠোর মনোভাবের কারণে এ সপ্তাহের শুরু থেকে এশিয়ার স্টক মার্কেটে সূচকের পতন শুরু হয়, যা বুধবার পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। খবর: রয়টার্স।

গতকালের বিশ্ববাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, জাপানের বাইরে এশিয়া প্যাসিফিকের এমএসসিআই’স ব্রডেস্ট সূচক শূন্য দশমিক ২২ শতাংশ বেড়েছে। জাপানের নিক্কেই (এন ২২৫) সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ২২ শতাংশ। আর অস্ট্রেলিয়ার এএক্সজেও সূচক শূন্য দশমিক ১৮ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে চীনের ব্লু চিপস-খ্যাত সিএসআই ৩০০ সূচক কমেছে শূন্য দশমিক ২২ শতাংশ। হংকং স্টক এইচএসআই সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ।

চীনের কর্তৃপক্ষ তাদের আইটি খাত এবং ব্যক্তিগত শিক্ষা খাতে ‘ক্র্যাকডাউন’ আরোপ করায় বিনিয়োগকারীরা চীনা প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ কমিয়ে দেয়। ফলে সপ্তাহের শুরুতে এমএসসিআই সূচক এশিয়ান অঞ্চলে পতন দিয়ে শুরু হয়। চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে এক প্রতিবেদন প্রকাশের জেরে টেক জায়ান্ট টেনসেন্টের শেয়ারদর মঙ্গলবার ১০ শতাংশের বেশি পড়ে যায়, যেখানে এক দিনে স্টক মার্কেট থেকে টেনসেন্টের মূলধন ৬০ বিলিয়ন কমে যায়।

এ বিষয়ে সাক্সো মার্কিটসের জ্যেষ্ঠ বাজার বিশ্লেষক এডিসন পান বলেন, চীনের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের অনিশ্চিত দমন নীতির নিয়ন্ত্রণ স্বল্প মেয়াদে থাকবে। বিনিয়োগকারীরা আবার দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ শুরু করবেন।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের স্টক মার্কেট নি¤œগতির ছিল। এসঅ্যান্ডপি ৫০০ সূচকে রেকর্ড বৃদ্ধির পর বুধবার শূন্য দশমিক ৪৬ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। আর ইউএস স্টক ফিটারস এসঅ্যান্ডপি ৫০০ এশিয়ান সূচকে শূন্য দশমিক দুই শতাংশ বেড়েছে। ব্ল চিপ ডাও জোন্স শূন্য দশমিক ৯২ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। যদিও নাসডাক সূচক কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী ছিল।

বুধবার ফেড কর্তৃক করোনাকালের জন্য সম্পত্তির তথ্য প্রকাশ করা হয়। সেখানে ফেডের ভাইস চেয়ারম্যান রিচার্ড ক্লারিডা বলেন, চলতি বছরের শেষ নাগাদ ১২০ বিলিয়ন ডলার সম্পত্তি হ্রাস করবে ফেড। উল্লেখ্য, বছরের প্রথমার্ধে বন্ডের মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে প্রায় ৯০০ বিলিয়ন ডলারের সম্পত্তির তহবিল গঠন করে ফেড, যা পুঁজিবাজারে চাপ সৃষ্টি করে।

ক্লারিডা আরও বলেন, মুদ্রানীতিতে ২০২২ সালের পরিবর্তে ২০২৩ সাল পর্যন্ত মূল্যস্ফীতি দুই শতাংশ রাখার সিদ্ধান্ত হয়, যে কারণে মার্কিন ডলারের দাম বেড়ে যায়। এ বিষয়ে আইজি মার্কিটসের বিশ্লেষক কাইল রুড্ডা বলেন, ফেডের সম্পত্তির তথ্য প্রকাশের পর মার্কেট (স্টক) একটি মিশ্র ভাব দেখা যাচ্ছে, যেখানে মার্কেটের ঊর্ধ্বমুখী ধারাই বজায় থাকবে বলে মনে করা হয়।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বেঞ্চমার্ক ১০-ইয়ার সূচকে গতকাল ১.১৮৪ শতাংশ থেকে বেড়ে ১.১৯৯ শতাংশে পৌঁছেছে। যদিও গত ফেব্রুয়ারিতে এ সূচক সর্বনি¤œ ১.১২৭ শতাংশে নেমেছিল, যা মার্কিন ডলারের দাম শক্তিশালী করেছে, যেখানে এক ডলার দিয়ে ১০৯.৬৩ জাপানি ইয়েন কেনা গেছে, সেখানে বুধবার ডলারের বিপরীতে ছিল ১০৮.৭১ ইয়েন। এদিকে স্বর্ণের বিপরীতে ডলারের দাম শূন্য দশমিক এক শতাংশ বেড়েছে।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি: এদিকে ই্উএস ক্রুড অয়েল শূন্য দশমিক ৩৭ শতাংশ বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ৬৮.৪ ডলারে বিক্রি হয়েছে। ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল সামান্য বেড়ে ব্যারেলপ্রতি ৭০.৬১ ডলারে বিক্রি হয়েছে। 

ডিজিটাল মুদ্রার দাম হ্রাস: অন্যদিকে এক দিন আগে ৮.৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে বুধবার ডিজিটাল মুদ্রা ইথারের দাম পড়েছে ১.৭৫ শতাংশ। আর বিটকয়েনের দাম ১.৩ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ৪০ হাজার ডলারে নেমেছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..