বিশ্ব সংবাদ

এশিয়ার চার দেশের প্রবৃদ্ধি পূর্বাভাস কমাল গোল্ডম্যান স্যাকস

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ বিনিয়োগ ব্যাংক গোল্ডম্যান স্যাকস গত বৃহস্পতিবার ‘এশিয়ান টাইগার’খ্যাত চার দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিষয়ে সংশোধিত পূর্বাভাস দিয়েছে। নতুন পূর্বাভাসে বৈশ্বিক বাণিজ্য সংঘাতের প্রেক্ষাপটে এসব দেশের অর্থনৈতিক কার্যক্রম কমবে এমন আশঙ্কায় পূর্বঘোষিত প্রবৃদ্ধির মাত্রা পরিবর্তন করা হয়। খবর: ব্লুমবার্গ।
মার্কিন বিনিয়োগ ব্যাংকটির প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তা আন্ড্রু টিল্টন প্রতিবেদনে জানান, ‘বিশ্ববাণিজ্যের সঙ্গে দৃঢ় সম্পৃক্ততা এতদিন এসব দেশের মূল অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে বিবেচনা করা হতো। নিজস্ব অর্থনীতির সংস্কারের পাশাপাশি বিশ্বায়ন এবং এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের উন্নয়ন কার্যক্রমের গতি হংকং, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রাখে। কিন্তু এ সম্পর্কের নেতিবাচক দিকও রয়েছে। বাণিজ্য সংঘাত এবং এর ফলে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক বিকাশ কমে আসায় এ দেশগুলোতেই প্রভাব পড়ছে।’
৮০ ও ৯০ দশকে বিশেষজ্ঞরা দ্রুতগতির বিকাশের জন্য হংকং, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া এবং তাইওয়ানকে এশিয়ান টাইগার উপাধি দেন। সংশোধিত পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চীনের স্বশাসিত ভূখণ্ড হংকংয়ের জিডিপি চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্ত শেষে আগের বছরের একই মেয়াদের তুলনায় দশমিক পাঁচ শতাংশ কমবে। এর আগে গোল্ডম্যান স্যাকস দুই দশমিক এক শতাংশ প্রবৃদ্ধির আশা করেছিল। একই সঙ্গে, ২০১৯ সালে সার্বিকভাবে হংকংয়ের মোট সেবা ও উৎপাদন প্রবৃদ্ধি মাত্র দশমিক দুই শতাংশ বাড়বে বলে সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে জানায় প্রতিষ্ঠানটি। বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি ও বাণিজ্যের দুর্বল অবস্থার পাশাপাশি অঞ্চলটিতে চলমান রাজনৈতিক গোলযোগ স্থানীয় অর্থনীতির ক্রেতা চাহিদাকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করবে এমন আশঙ্কা করেছেন ব্যাংকটির অর্থনীতিবিদরা।
২০১৯ সালে সিঙ্গাপুরের মোট উৎপাদন ও সেবার প্রবৃদ্ধি কমিয়ে দশমিক চার শতাংশ করা হয়। এর আগে নগর রাষ্ট্রটির অর্থনীতি এক দশমিক এক শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে এমন পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। এ অবস্থায় সিঙ্গাপুরের মুদ্রানীতি নির্ধারকরা বিনিময় হারের মান কমিয়ে আনতে পারেন। মনিটারি অথরিটি অব সিঙ্গাপুর আগামী অক্টোবরের বৈঠকে মুদ্রামান এক শতাংশ কমাবে, অধিকাংশ অর্থনীতি বিশারদ এ বিষয়ে একমত।
চলতি বছর দক্ষিণ কোরিয়ার অর্থনীতি এক দশমিক ৯ শতাংশ বাড়বে। পূর্ব ধারণায় দুই দশমিক দুই শতাংশ বিকাশের অনুমান করা হয়েছিল। এ অবস্থায় দেশটি সুদহার ২৫ বেসিস পয়েন্ট আকারে কমাবে। ২০১৯ সালে তাইওয়ানের অর্থনীতি পূর্বঘোষণার দুই দশমিক চার থেকে কমে দুই দশমিক তিন শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে বলে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

সর্বশেষ..