পুঁজিবাজার বাজার বিশ্লেষণ

‘এ’ ও ‘ইসিআরএল-২’ পেলো সোনালী আঁশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঋণমান অবস্থানে (ক্রেডিট রেটিং) ‘এ’ ও ‘ইসিআরএল-২’ পেলো সোনালী আঁশ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ইমারজিং ক্রেডিট রেটিং লিমিটেডের (ইসিআরএল) রেটিং অনুযায়ী পাট খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির দীর্ঘ মেয়াদে ‘এ’ এবং স্বল্প মেয়াদে হয়েছে ‘ইসিআরএল-২’। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদনের আলোকে এ রেটিং সম্পন্ন হয়েছে।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটি ১৯৮৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে অবস্থান করছে। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ প্রস্তাব করেছে। এ সময় কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৫৯ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২২৪ টাকা ৫৪ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল ৬০ পয়সা ও এনএভি ছিল ২২৩ টাকা ৯৫ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য ২২ ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১১টায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ ছিল ২৮ নভেম্বর। চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর)  ইপিএস হয়েছে ২৯ পয়সা, যা এর আগের বছর একই সময় ১৯ পয়সা ছিল। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে ১০ পয়সা।

অন্যদিকে চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানির এনএভি ২২৪ টাকা ৮৩ পয়সা দাঁড়িয়েছে, যা একই বছর ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে ২২৪ টাকা ৫৪ পয়সা ছিল। তিন মাসে এনএভি ২৯ পয়সা বেড়েছে।

গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর আগের দিনের চেয়ে এক দশমিক শূন্য দুই শতাংশ বা এক টাকা ৯০ পয়সা কমে প্রতিটি সর্বশেষ ১৮৪ টাকা ২০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৮৩ টাকা ৪০ পয়সা। দিনজুড়ে ৪৩ হাজার ১৪১টি শেয়ার মোট ১৯৩ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৭৯ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। শেয়ারদর সর্বনি¤œ ১৮২ টাকা ১০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ১৮৭ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ১১২ টাকা ৭০ পয়সা থেকে ২১৮ টাকা ৯০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে। ১০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন দুই কোটি ৭১ লাখ ২০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৫৮ কোটি দুই লাখ টাকা। ২০১৫ সালে কোম্পানিটি ১০ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল। আলোচ্য সময়ে কর-পরবর্তী লোকসান করেছিল ১৬ লাখ ২০ হাজার টাকা, যা আগের বছর মুনাফা ছিল ১৬ লাখ ২০ হাজার টাকা। কোম্পানিটি তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ ২০১৬) ইপিএস ছিল ৪০ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল ২৬ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে ১৪ পয়সা। ৩১ মার্চ ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি ছিল ২২৪ টাকা ৮৪ পয়সা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ২২৩ টাকা ৬৫ পয়সা। কোম্পানিটির ২৭ লাখ ১২ হাজার শেয়ার রয়েছে।

 

 

 

সর্বশেষ..