কোম্পানি সংবাদ

‘এ’ ক্যাটেগরিতে জনতা ইন্স্যুরেন্স

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘বি’ থেকে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে উন্নীত হলো বিমা খাতের কোম্পানি জনতা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্রমতে, কোম্পানিটি ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত আর্থিক বছরের জন্য বিনিয়োগকারীদের পাঁচ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ স্টক ডিভেডেন্ড দিয়েছে। তাই ‘বি’ থেকে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে উন্নীত হলো কোম্পানিটি। ‘এ’ ক্যাটেগরিতে গতকাল থেকে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, কোম্পানিটি ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ সমাপ্ত হিসাববছরে পাঁচ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে ইপিএস হয়েছে এক টাকা ছয় পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৪ টাকা ৩০ পয়সা।
এদিকে গতকাল ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর চার দশমিক ৭৯ শতাংশ বা ৮০ পয়সা কমে প্রতিটি সর্বশেষ ১৫ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৬ টাকা। দিনজুড়ে দুই লাখ ৪১ হাজার ৪১১ শেয়ার মোট ২৩০ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৩৯ লাখ ৩৭ হাজার টাকা। এক বছরে শেয়ারদর সর্বনিম্ন ১২ টাকা ২০ পয়সা থেকে ২৪ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়।
এর আগে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাববছরে পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫০ পয়সা ও ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছিল ১৩ টাকা ৮৯ পয়সা। যা তার আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে ২২ পয়সা ও ১৩ টাকা ৩৯ পয়সা। ২০১৭ সালে কর-পরবর্তী মুনাফা করে এক কোটি ৯২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যা তার আগের বছর ছিল ৮৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা।
বিমা খাতের কোম্পানিটি ১৯৯৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি ২৭ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ সাত কোটি ৪২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির মোট চার কোটি দুই লাখ ৭০ হাজার ৩০৬ শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৩৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৫২ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

সর্বশেষ..