প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ওয়ানএমডিবি কেলেঙ্কারি: ব্যাংক কর্মকর্তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে সিঙ্গাপুর

 

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ওয়ান মালয়েশিয়ান ডেভেলপমেন্ট বেরহাদ বা ওয়ানএমডিবি থেকে অর্থ সরানোর ঘটনায় এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে সিঙ্গাপুর। ইয়ো জিয়ায়েই নামের এ কর্মকর্তা ঘটনার সময়ে সুইস ব্যাংক বিএসআই’তে কর্মরত ছিলেন। ঘটনার পর সিঙ্গাপুরে ওই ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। খবর বিবিসি।

ইয়োর লো তায়েক জো নামের এক মালয়েশীয় গ্রাহককে ১০০ মিলিয়ন ডলার অর্থ লেনদেনে সাহায্য করেছিল, যে অর্থ ওয়ানএমডি থেকে এসেছিল। এ ঘটনায় আরও দুজনকে অভিযুক্ত করা হলেও তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পায়নি কর্তৃপক্ষ।

ওয়ানএমডিবি মালয়েশিয়ার সরকারের একটি  কৌশলগত উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান। আন্তর্জাতিক সম্পর্কোন্নয়ন ও সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের ব্যবস্থা করে দেশের দীর্ঘমেয়াদি অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য ২০০৮ সালে এ প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়। প্রথমে প্রতিষ্ঠানটির নাম ছিল  তেরেঙ্গানু ইনভেস্টমেন্ট অথরিটি (টিআইএ)। পরের বছর, ২০০৯ সালে এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘ওয়ান মালয়েশিয়ান ডেভেলপমেন্ট  বেরহাদ’।

ওয়ানএমডিবি বিতর্কের সৃষ্টি হয় ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের মাধ্যমে। ২০১৫ সালের জুলাই মাসে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। এতে মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়া ও অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তোলা হয়।

অভিযোগ ছিল, ওয়ানএমডিবি ফান্ড থেকে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন রিংগিট জমা করা হয়েছে। তবে শুরু থেকেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক। মালয়েশিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ এপান্ডি পরে নাজিবকে নির্দোষ বলে ঘোষণা দেন।

ওই সময়ে সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করেছে সিঙ্গাপুর কর্তৃপক্ষ। তখন দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও পুলিশের জালিয়াত বিরোধী ইউনিট বলেছিল, আমরা অবৈধ তহবিলের আশ্রয়দাতা হিসেবে পরিগণিত হতে রাজি নই। এ কারণে বেশ কয়েকটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করেছি আমরা। তদন্ত এগিয়ে নিতে আমরা বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তথ্য চেয়েছি। সে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেকের সঙ্গে কথা বলছি। এর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার দেশটির ওই ব্যাংক কর্মকর্তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হলো।