বিশ্ব সংবাদ

কংগ্রেসকে মিলিশিয়ার ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সতর্ক করেছে মার্কিন পুলিশ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: মার্কিন পার্লামেন্ট ভবন ইউএস ক্যাপিটলে আবারও হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করল গোয়েন্দা পুলিশ। একটি অজ্ঞাত সশস্ত্রগোষ্ঠী এ হামলা চালাতে পারে বলে নিরাপত্তা জোরদার করছে মার্কিন প্রশাসন।

সম্ভাব্য এ হামলার আশঙ্কায় বৃহস্পতিবারের অধিবেশন বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদ, তবে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটে যথারীতি কার্যক্রম চলবে। খবর: বিবিসি।

দেশটির কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই ও ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটি সম্প্রতি এক বিবৃতিতে বলছে, একটি বেনামি সশস্ত্র বাহিনী ৪ মার্চ অথবা সে সময়ের দিকে ইউএস ক্যাপিটলের নিয়ন্ত্রণ নেয়া এবং ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতাদের সরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা নিয়ে গত ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে আলোচনা করছিল। এতে অংশগ্রহণের জন্য হাজার হাজার মানুষকে ওয়াশিংটন ডিসি যেতে অনুপ্রাণিত করার উচ্চাভিলাসী পরিকল্পনা নিয়েও কথা বলছিল তারা।

গোয়েন্দা সংস্থার এ সতর্কবাণীর ফলে ক্যাপিটল পুলিশ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ৪ মার্চ ক্যাপিটল ভবনে অজ্ঞাত সশস্ত্র গোষ্ঠীর সম্ভাব্য অনুপ্রবেশ পরিকল্পনার কারণে নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে। কংগ্রেস, জনসাধারণ ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আমরা ইতোমধ্যে অবকাঠামো নির্মাণ এবং ব্যাপকহারে জনবল বৃদ্ধি করেছি, স্পর্শকাতর বিষয়ে বেশি কিছু জানানো যাচ্ছে না বলে এ বিবৃতিতে বলা হয়।

কিউঅ্যানন এবং ৪ মার্চ উগ্র ডানপন্থি কিউঅ্যানন তত্ত্বের বিশ্বাসীরা মনে করেন, শয়তানের উপাসক ও শিশু নিপীড়ক একটি গোপন সংগঠক বিশ্বব্যাপী শিশু পাচার কার্যক্রম চালাচ্ছে যারা কিনা ডোনাল্ড ট্রাম্পের শত্রু। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট এ গোপন সংগঠনের বিরুদ্ধে একাই লড়ে যাচ্ছেন এবং এ লড়াই চালিয়ে যেতে ট্রাম্পের ক্ষমতায় থাকা দরকার বলে মনে করেন কিউঅ্যাননরা।

তাদের কাছে ৪ মার্চ তারিখটি গুরুত্বপূর্ণ, কারণ ১৯৩৩ সালে মার্কিন সংবিধানের ২০তম সংশোধনীর আগে প্রেসিডেন্ট এবং কংগ্রেস সদস্যরা এ দিনটিতেই অফিসের দায়িত্বভার গ্রহণ করতেন।

৪ মার্চ নিয়ে কিউঅ্যাননদের অনলাইনে আলোচনার বিষয়ে তথ্য রয়েছে মার্কিন নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কাছে। তবে

তারাই ওই দিনে সহিংসতা করবে এমন সুনির্দিষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি বলে গত সপ্তাহে জানিয়েছিলেন এক এফবিআই কর্মকর্তা।

সাম্প্রতিক হুমকির প্রায় দুমাস আগে ক্যাপিটল ভবনে হামলা চালিয়েছিল তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সর্মথকরা। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয়ের স্বীকৃতি দেয়ার সংসদীয় প্রক্রিয়ার মধ্যেই সেখানে তাণ্ডব চালায় উগ্রবাদীরা। এতে এক পুলিশসহ অন্তত পাঁচজন নিহত হন।

এ ঘটনায় সারাবিশ্বে ব্যাপক সমালোচনার শুরু হয় এবং যুক্তরাষ্ট্রে গণতন্ত্রের ইতিহাসে কালিমা লেপণের দায়ী অভিযুক্ত হন ডোনাল্ড ট্রাম্প। অবশ্য তিনি এখনও গত নভেম্বরের ওই নির্বাচনে হেরে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন না।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..