দিনের খবর

কঠোর নিরাপত্তায় ছোট পরিসরে আজ শপথ নিচ্ছেন বাইডেন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: নজিরবিহীন নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আজ বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম  প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিচ্ছেন জো বাইডেন। এ বছর করোনাভাইরাসের আঘাত, তার ওপর বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের আগ্রাসী মনোভাবে বাধ্য হয়েই একেবারে  ছোট পরিসরে আয়োজন হচ্ছে অভিষেক অনুষ্ঠান। নতুন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে দিনভর থাকছে বিভিন্ন আয়োজন। এর কিছু হয়তো আইনি প্রয়োজনে, বাকিগুলো ঐতিহ্য রক্ষার খাতিরেই আয়োজন হবে। খবর : সিএনএন। 

যুক্তরাষ্ট্রের সময় বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে শুরু হবে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও ভাইস-প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান। সাধারণত অভিষেকের দিন সকালেই নব-নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউসে পৌঁছে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ও তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। সেখান থেকে তারা একসঙ্গে অভিষেক অনুষ্ঠানে যান। কিন্তু, এবার বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে যাবেন না। এ কারণে সেদিন সকালে বাইডেনের হোয়াইট হাউস ভ্রমণ হবে কি না, তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

হোয়াইট হাউস ভ্রমণ শেষে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এবং ভাইস  প্রেসিডেন্ট ক্যাপিটল ভবনে পৌঁছালেই শুরু হয় অভিষেকের আনুষ্ঠানিকতা। প্রথমে শপথবাক্য পাঠ করেন নতুন প্রেসিডেন্ট। এরপর রীতি মেনে অভিষেকের বক্তব্য রাখেন।

১৯৩৭ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের শপথ অনুষ্ঠানে প্রার্থনার নিয়ম চলছে। অনেক সময় নতুন প্রেসিডেন্টের পরিচিত যাজকরাই এটি করে থাকেন। এরপর কংগ্রেসের নেতাদের সঙ্গে দুপুরের খাবার খান প্রেসিডেন্ট। পরে মিছিল নিয়ে হোয়াইট হাউসে পৌঁছান তিনি। সেখানে অভিষেক উপলক্ষে জাঁকজমক পার্টিতে যোগ দেন নতুন প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডি। কিন্তু এ বছর অভিষেক অনুষ্ঠানের আয়োজন একেবারে সীমিত করে ফেলা হয়েছে। জানা গেছে, হোয়াইট হাউসে যাওয়ার মিছিলটি হবে ভার্চুয়াল। হচ্ছে না কংগ্রেস সদস্যদের সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজ। বাদ অভিষেক পার্টিও।

এদিকে সম্ভাব্য অভ্যন্তরীণ হামলা এড়াতে ওয়াশিংটনে ন্যাশনাল গার্ডের ২৫ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। রাজধানীর   বেশিরভাগ রাস্তা এবং মেট্রো স্টেশনগুলোর পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ জাতীয় উদ্যান হিসেবে পরিচিত ন্যাশনাল মলও বন্ধ করে দিয়েছে। ভার্জিনিয়া রাজ্য থেকে শহরে প্রবেশের সেতুগুলোও বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। আরও সহিংসতার হাত থেকে রক্ষার জন্য হাজার হাজার ন্যাশনাল গার্ড সদস্য এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তারা পুরো এলাকাজুড়ে অবস্থান করছেন।

বুধবার একটি ‘নতুন প্রশাসন’ আসবে ট্রাম্প তা মেনে নেয়া সত্ত্বেও নিজের পরাজড মেনে নিতে বা বাইডেনকে অভিনন্দন জানাতে অস্বীকার করেছেন। ট্রাম্প শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের ১৬০ বছরের মার্কিন ঐতিহ্য উপেক্ষা করে ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন না। তবে ভাইস  প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..