বিশ্ব সংবাদ

কভিডের টিকা নিলেন নরেন্দ্র মোদি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) টিকা নিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গতকাল সোমবার সকাল ৬টা ২৫ মিনিটে রাজধানী দিল্লির এআইআইএমএসে তিনি টিকা নিয়েছেন। খবর: টাইমস অব ইন্ডিয়া।  

টিকা নেয়ার পর এক টুইট বার্তায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এআইআইএমএসে করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছি। বৈশ্বিক করোনা মহামারি মোকাবিলায় আমাদের ডাক্তার ও বিজ্ঞানীরা স্বল্পতম সময়ে যে তৎপরতা দেখিয়েছেন, তা সত্যিই অসাধারণ। তিনি বলেন, যারা এখনও করোনা টিকা নেননি, তাদের সবাইকে তা নেয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। আসুন আমরা একটি করোনামুক্ত ভারত গড়ে তুলি।

গত ১৬ জানুয়ারি থেকে গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু করেছে ভারত। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাদের টিকা দেয়া হবে, সেই তালিকায় সবার আগে রয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী ও সম্মুখসারির করোনাযোদ্ধারা। তালিকায় তাদের পর রয়েছেন পঞ্চাশোর্ধ্ব ব্যক্তিরা। প্রথম পর্যায়ে তিন কোটি স্বাস্থ্যকর্মী ও সম্মুখসারির করোনাযোদ্ধাদের টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে ভারত সরকারের। তারপর প্রায় ২৭ কোটি পঞ্চাশোর্ধ্ব বয়সী ব্যক্তিদের টিকা দেয়া হবে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলমান এ কর্মসূচিতে এরই মধ্যে এক কোটিরও বেশি ডোজ টিকা দেয়া হয়ে গেছে। এ কর্মসূচিতে ব্যবহারের জন্য গত ৩ জানুয়ারি ভারতের কেন্দ্রীয় ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই) দুটি করোনা টিকার অনুমোদন দিয়েছে। সেগুলো হলো ভারত বায়োটেকের তৈরি ‘কোভ্যাক্সিন’ ও সেরাম ইনস্টিটিউটের ‘কোভিশিল্ড’।

ভারত বায়োটেক ভারতের হায়দরাবাদভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। তারা ‘কোভ্যাক্সিন’ নামের টিকাটি তৈরি করেছে। অন্যদিকে ভারতের পুনেভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট বিশ্বের বৃহত্তম টিকা প্রস্তুতাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃত। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনার টিকা প্রকল্পের অন্যতম অংশীদারও তারা। সেরাম ইনস্টিটিউট তৈরি করেছে ‘কোভিশিল্ড’।

‘কোভ্যাক্সিন’ ও ‘কোভিশিল্ড’ দুটি টিকাই ভারতের দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া টিকাদান কর্মসূচিতে ব্যবহারের জন্য অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা টিকাও অনুমোদন দিয়েছে ডিসিজিআই।

ভারতে যখন গণটিকাদান কর্মসূচি শুরুর বিষয়ে আলোচনা চলছিল, তখন নরেন্দ্র মোদি বরাবর কয়েকজন মুখ্যমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকার মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন সদস্য রাজনীতিবিদদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..