বিশ্ব সংবাদ

কভিডে বিশ্বে এক দিনে চার লাখের বেশি নতুন রোগী

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ইউরোপে মহামারি কভিড-১৯-এর নতুন করে বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে বিশ্বব্যাপী এক দিনে রেকর্ডসংখ্যক নতুন রোগী বেড়েছে। গত শনিবার প্রথমবারের মতো বিশ্বজুড়ে চার লাখেরও বেশি কভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে। খবর: রয়টার্স।

ইউরোপ প্রথম পর্যায়ে করোনা প্রাদুর্ভাব সফলভাবে সামাল দিলেও সম্প্রতি ফের নতুন সংক্রমণের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। মহাদেশটিতে গত সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে এক লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। একটি অঞ্চল হিসেবে ইউরোপে প্রতিদিন ভারত, ব্রাজিল ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্মিলিত সংখ্যার চেয়েও বেশি রোগী শনাক্ত হচ্ছে।

রয়টার্সের বিশ্লেষণ অনুয়ায়ী, এখন বিশ্বজুড়ে প্রতি ১০০ আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে ৩৪ জন ইউরোপীয় দেশগুলোর বাসিন্দা। প্রতি ৯ দিনে এখানে ১০ লাখ নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হচ্ছে। মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে ইউরোপে এ পর্যন্ত ৬৩ লাখেরও বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে।

ইউরোপের নতুন আক্রান্তদের মধ্যে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, রাশিয়া, নেদারল্যান্ডস ও স্পেনেই প্রায় অর্ধেক রোগী শনাক্ত হয়েছে। দৈনিক ১৯ হাজার ৪২৫ জন নতুন রোগী নিয়ে ইউরোপে নতুন আক্রান্তের এক সপ্তাহের গড়ে শীর্ষে আছে ফ্রান্স; এরপর যথাক্রমে যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, স্পেন ও নেদারল্যান্ডসে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশে স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।  

বিশ্বজুড়ে মোট কভিড-১৯ রোগীর ২৭ শতাংশ নিয়ে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হওয়া এলাকা লাতিন আমেরিকা; এরপর এশিয়া, উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপের অবস্থান।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ৮০ লাখ  ৭৬ হাজার ১০৩ জন আক্রান্ত রোগী নিয়ে এবং দুই লাখ ১৮ হাজার ৮৬৯ জন মৃত্যুবরণকারী নিয়ে উভয় তালিকায় শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র। ৭৪ লাখ ৩২ হাজার ৬৮০ আক্রান্ত রোগী নিয়ে এ তালিকায় বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত। সেপ্টেম্বরের তুলনায় চলতি মাসে ভারতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে। আক্রান্তের তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে কভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৫২ লাখ ৩০০। দেড় লাখেরও বেশি মৃত্যুবরণকারী নিয়ে এ তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের পরেই আছে দেশটি। বিশ্বে শুধু এ তিনটি দেশেই করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়েছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। করোনার প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে। ১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট রোগের নামকরণ করে ‘কভিড-১৯’। ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..