সারা বাংলা

কভিডে স্বেচ্ছাসেবকদের সেবা মহৎ ও মানবিক কাজ: চসিক মেয়র

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। মানুষের মধ্যে মানবিকতা প্রয়োজন। কভিড-১৯ ও ডেঙ্গু প্রতিরোধে স্বেচ্ছাসেবক হতে যারা এসেছেন তারা একটি মহৎ কাজে শামিল হয়েছেন। এ উদ্যোগ চট্টগ্রামসহ সারাদেশে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, কভিড-১৯, ডেঙ্গুসহ যে কোনো দুর্যোগে স্বেচ্ছাসেবী হওয়ার লক্ষ্যে গঠিত আরবান কমিউনিটি ভলান্টিয়ারের দলনেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন চসিক মেয়র। ভলান্টিয়াররা জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলায় দেশের যে কোনো প্রান্তে কাজ করতে সক্ষম। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইপসার প্রয়াস প্রকল্পের অধীনে ভলান্টিয়ারদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

চসিকের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি ও কাউন্সিলর জহরুল আলম জসিমের সভাপতিত্বে ও মেয়রের একান্ত সচিব মুহাম্মদ আবুল হাশেমের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন প্যানেল মেয়র মো. গিয়াসউদ্দিন, বর্জ্য স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মো. মোবারেক আলী, স্বাস্থ্য স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর জহুর লাল হাজারী, সমাজ কল্যাণ স্ট্যান্ডিং কমিটির আবদুস সালাম মাসুম, সংরক্ষিত কাউন্সিলর রুমকী সেনগুপ্ত, জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব ও চসিক সচিব খালেদ মাহমুদ প্রমুখ।

মেয়র আরও বলেন, এবার কোরবানির ঈদে যেমন বর্জ্য পরিষ্কারে চসিক সাফল্য দেখিয়েছে, তেমনি করোনা ও ডেঙ্গুর মতো দুর্যোগে চসিক গঠিত স্বেচ্ছাসেবক দলও সফলতা দেখাতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস। আমরা প্রমাণ করতে চাই, যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলাসহ জাতীয় যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে চট্টগ্রাম সবসময় অগ্রগামী ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

এদিকে করপোরেশনকে করোনা মোকাবিলায় সুরক্ষা সামগ্রী হিসেবে দুই হাজার ২০০টি মাস্ক ও ২২০টি হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চট্টগ্রাম সিটি ইউনিট। এসব সুরক্ষা সামগ্রী বহদ্দারহাট কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী ও বাজারে আসা ক্রেতাদের মাঝে বিতরণ করা হবে।

সুরক্ষা সামগ্রী গ্রহণকালে মেয়র বলেন, বৈশ্বিক মহামারিতে বিশ্ব আজ বিপর্যস্ত। আমরা চসিকের পক্ষ থেকে স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করে ৪১টি ওয়ার্ডে করোনা সচেতনতার জন্য কর্মসূচি নিয়েছি। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমও অব্যাহত রয়েছে। এখন যা প্রয়োজন তা হলো সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ মেনে চলা।

তিনি বলেন, আমাদের জরুরি প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হতে হলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। পাশাপাশি দ্রুত রেজিস্ট্রেশন করে করোনার টিকা নিয়ে নিতে হবে। সাবধানতা অবলম্বনই পারে করোনা থেকে সুরক্ষা দিতে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..