খবর

কভিড টিকাকেন্দ্রের তথ্য পাওয়া যাবে ফেসবুকে

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের জন্য কভিড-১৯ টিকাকেন্দ্রের তথ্য সেবা এনেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মিলিত হয়ে দেশে ‘ভ্যাকসিন ফাইন্ডার’ সেবা চালু করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

নতুন এ ফিচারের মাধ্যমে বাংলাদেশের ফেসবুক ব্যবহারকারীরা জানতে পারবেন কারা টিকা নিতে পারবেন এবং তার কাছাকাছি কোন টিকাকেন্দ্র রয়েছে।

এ ছাড়া স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি, মানুষকে করোনা সম্পর্কিত তথ্য পেতে সাহায্য করা ও দেশে টিকাদান কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তার জন্য ফেসবুকের সামগ্রিক প্রকল্পের একটি অংশ এ ‘ভ্যাকসিন ফাইন্ডার’ টুল।

ফেসবুকের কভিড-১৯ তথ্যকেন্দ্রে ইংরেজির পাশাপাশি বাংলায়ও ভ্যাকসিন ফাইন্ডার টুলটি পাওয়া যাবে। এ বিষয়ে ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পৃথিবীজুড়ে টিকাদান কার্যক্রমে সহায়তা এবং নিরাপদ স্বাস্থ্যবিধি পালনে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য নানা পদক্ষেপ নিয়েছে প্ল্যাটফর্মটি। কভিড-১৯ তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে ফেসবুক বিশ্বজুড়ে ২০০ কোটির বেশি মানুষকে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের দেয়া তথ্যের সঙ্গে যুক্ত করেছে। পাশাপাশি কভিড-১৯ ও অনুমোদিত টিকা সম্পর্কিত ১ কোটি ৮০ লাখের বেশি ভুল তথ্য সরিয়ে নিয়েছে।

মহামারিতে স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়াতে এবং মানুষকে সবশেষ তথ্যের সঙ্গে সংযুক্ত করতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কাজ করছে ফেসবুক। এ পর্যন্ত ১ কোটির বেশি বাংলাদেশি ফেসবুকের ব্লাড ডোনেশনস টুল ব্যবহার করে সাইনআপ করেছেন যেন তারা দেশে রক্তের সংকট কমিয়ে আনার প্রচেষ্টায় ভূমিকা রাখতে পারেন।

বাংলাদেশি ব্যবহারকারীরা যেন টিকা নিতে আগ্রহী হন এবং এর জন্য নিবন্ধন করেন সে বিষয়েও কাজ করছে ফেসবুক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি জানায়, বাংলাদেশ সরকারের http://www.surokkha.gov.bd ওয়েবসাইটে টিকার জন্য নিবন্ধনে আগ্রহী করতে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের নিউজ ফিড নোটিফিকেশন পাঠায়। মাস্ক পরার মতো প্রতিরোধমূলক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথাও নিয়মিত মনে করিয়ে দেয়। সহজে  http://www.corona.gov.bd ওয়েবসাইট থেকে কভিড-১৯ সংক্রান্ত সরকারি নির্দেশনা জানতেও প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহারকারীদের সাহায্য করে। চলতি বছরের শুরুতে কভিড সম্পর্কিত ভুল তথ্য শনাক্ত ও প্রতিহত করে বাংলাদেশিদের সচেতন করার লক্ষ্যে ফেসবুক একটি জনশিক্ষা কার্যক্রম চালু করেছে http://www.fightcovidmisinfo.com ।

টেকনোলজিবিষয়ক অলাভজনক সংগঠন মিদান-এর ডিজিটাল হেলথ ল্যাবের সঙ্গে এ সপ্তাহে পার্টনারশিপ শুরু করেছে ফেসবুক জার্নালিজম প্রজেক্ট। অনলাইনে ছড়ানো ভুল তথ্য প্রতিরোধে তারা ফেসবুকের সঙ্গে জড়িত স্বতন্ত্র থার্ড পার্টি ফ্যাক্ট-চেকারদের সাহায্য করবে। চিকিৎসক, বিজ্ঞানী ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত মিদান-এর দলটি ভার্চুয়াল ট্রেনিং সেশনের আয়োজন করবে। স্বাস্থ্যবিষয়ক ফ্যাক্ট চেকের জন্য ফ্যাক্ট-চেকিং পার্টনাররা হেলথ ডেস্কে সহায়তা নিতে পারেন। এ উদ্যোগ কোম্পানিটির স্বাস্থ্যবিষয়ক ভুল তথ্য শনাক্ত করার চলমান প্রক্রিয়ার একটি নতুন সংযোজন।

ফেসবুকে টিকাকেন্দ্র খোঁজার এ ফিচার নিয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা আছে যে, আমরা দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে চাই। বাংলাদেশে বর্তমানে ৪ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারী আছেন। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ভ্যাকসিন ফাইন্ডার টুল ব্যবহার করে জানতে পারবেন তাদের নিকটবর্তী ভ্যাকসিন প্রদানকারী সেন্টার কোনটি এবং তারা যদি রেজিস্ট্রেশন করতে চান তবে একটি ক্লিকে সুরক্ষা ওয়েবসাইটে গিয়ে সহজে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হিসেবে ফেসবুকের এটি একটি দারুণ উদ্যোগ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..