সারা বাংলা

কম দাম লালমনিরহাটে ধানবাজারে বসছে সুপারি হাট

জেআই সমাপ্ত, লালমনিরহাট: ধানের দাম কম থাকায় হাট-বাজারগুলোতে ধান বিক্রি করতে আসছেন না কৃষকরা, ফলে মিলছে না ক্রেতাও। সংসার খরচ মেটাতে হাটবাজারে কৃষকরা ধানের পরিবর্তে নিয়ে আসছেন পরিবারের জন্য রাখা সুপারি। তবে সুপারিতে দাম ভালো পেলেও ধানের দামে একেবারেই হতাশ তারা।
সরেজমিনে দেখা যায়, লালমনিরহাট সদর উপজেলার নয়ার হাটে নির্ধারিত ধানবাজারে বসেছে সুপারির বাজার। আর একই চিত্র মিলছে জেলার সবগুলো হাটবাজারে। হাটবাজারগুলোতে নেই ধানের বিক্রেতা ও ক্রেতা। ধান বিক্রি করে কৃষকরা উৎপাদন খরচও তুলতে না পারায় আপাতত ধান বিক্রি করতে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছেন। অপেক্ষা করছেন ধানের দাম বাড়ার। আর সংসার খরচ চালাতে তারা গাছের সুপারিসহ অন্যান্য ফলমূল ও শাকসবজি বিক্রি করছেন।
কৃষকরা জানান, ধানের বাজারদর নিয়ে হতাশ ও বিক্ষুব্ধ তারা। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে আপাতত ধান বিক্রি করছেন না তারা। শ্রমিক ও সংসার খরচ মেটাতে পরিবারের জন্য রাখা সুপারি বিক্রি করছেন। ধানের বাজারদর সন্তোষজনক না হওয়া পর্যন্ত জেলার হাটবাজারগুলোতে ধান বেচা-কেনার পরিবেশ দেখা যাবে না বলে জানিয়েছেন তারা।
লালমনিরহাট জেলা মার্কেটিং অফিসার আবদুর রহিম জানান, বর্তমান বাজারে ধান ৪৩০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে কৃষকদের ধান উৎপাদনে যে খরচ হয়েছে তা উঠছে না। ফলে কৃষকরা তাদের ধান হাটবাজারগুলোতে তুলছেন না। অপরদিকে ধান ব্যবসায়ী ও মিল-মালিকরা কম দামে ধান কেনার আশায় তারাও আসছে না হাটবাজারগুলোতে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..