আজকের পত্রিকা শেষ পাতা সর্বশেষ সংবাদ সুস্বাস্থ্য

করোনাকালেও শতবছর বাঁচার উপায়

এখন পর্যন্ত করোনাকালের মহৌষধ ‘কোয়ারেন্টাইন’। হয়তো কিছুদিনের জন্য পৃথক থাকতে হবে; ওষুধ আবিষ্কার হওয়ার পর আবার আগের মতো স্বাভাবিক হবে সবকিছু। তবে মানসিক সমস্যা প্রকট হয়ে থাকছে ততদিন। মনের প্রভাব পড়ছে দেহে। এতে কিন্তু হেরে গেলে চলবে না, এলোমেলো এ সময়ে নিজেকে জয় করতে হবে। বাঁচতে হবে শতবছর। কিন্তু কীভাবে? এজন্য দরকার সুষম খাবার, ব্যায়াম ও পর্যাপ্ত ঘুম। পাশাপাশি আরও কয়েকটি সহজ বিষয় দেখে নিতে পারেন।

প্রচুর পানি পান করুন: খেলাধুলা না করে থাকলে দিন ও রাত মিলিয়ে অন্তত দুই লিটার পানি পান করুন। খেলাধুলা করলে এর সঙ্গে আরও এক লিটার যোগ করুন।

সবুজ খাবার খান: পর্যাপ্ত শাকসবজি ও ফল খেতে হবে। সব ধরনের মাছ, বিশেষ করে সামুদ্রিক মাছ পাতে রাখতে চেষ্টা করুন। সপ্তাহে একদিন মাংস খান।

কার্ডিও করতে হবে: কার্ডিও ভাসকুলার অ্যাকটিভির সংক্ষিপ্ত রূপ ‘কার্ডিও’। এ ধরনের শরীরচর্চা হৃৎকম্পন বাড়িয়ে দেহের রক্ত চলাচল বাড়ায় এবং বিপাক বৃদ্ধি করে। হাঁটা, দৌড়ানো, সাঁতার কাটা, সাইকেল চালানো প্রভৃতি চালিয়ে যেতে হবে। শরীর ও মন ঝরঝরে রাখতে নিয়মিত কার্ডিও করুন। বুক ভরে তাজা বাতাস নিন। হাঁটুন। জগিং করুন; অথবা সাঁতার কাটুন নিয়মিত। ঘাম ঝরান।

ধূমপান ও মাদকদ্রব্যকে ‘না’ বলুন: এসব পণ্যের কোনো উপকারিতা নেই। এদের ত্যাগ করুন। এগুলো যেমন শরীরের ক্ষতিকর, তেমনি পরিবেশের জন্যও মারাত্মক ক্ষতি।

সাহচর্য: প্রিয় মানুষের সঙ্গ নিন। স্ত্রী বা স্বামীর ঘনিষ্ঠ সঙ্গ উপভোগ করুন। বিশ্বস্ত থাকুন একে অপরের প্রতি। মনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে এমন মানুষ এড়িয়ে চলুন।

দেহের কথা শুনুন: হোক সেটা খাবার কিংবা পানি, ঘুম অথবা ব্যথা, দেহ কি চায়Ñ তা শুনুন। তার ডাকে সাড়া দিন। আপনার দেহ অন্যের চেয়ে আলাদা; এর অর্থ আপনাকেই নিজ দেহের ভারসাম্য রক্ষার উপায় খুঁজে নিতে হবে।

মনের ব্যায়াম করুন: বয়স বাড়ার সঙ্গে মনের বয়সও বাড়ে। তাই প্রতিদিন মনের ব্যায়াম করুন। মনকে কীভাবে সতেজ রাখা যায়, তার উপায় বের করুন। ইউটিউবে এ-সংক্রান্ত অনেক ব্যায়াম পাবেন। চর্চা করুন।

প্রয়োজন অনুযায়ী ঘুমান: একেকজনের ঘুমের চাহিদা একেকরকম। কারও সঙ্গে এর মিল নেই। নিজেরটা বুঝুন। সে অনুযায়ী ঘুমান।

চাপযুক্ত কাজ এড়িয়ে চলুন: মানসিক ও দৈহিক স্বাস্থ্যে স্ট্রেসের নেতিবাচক প্রভাব পরীক্ষিত। তাই এ ধরনের কাজ এড়িয়ে চলুন।

তাড়াহুড়ো নয় কখনো: তাড়াহুড়োয় ভুলের পরিধি বাড়ে। হয়তো এর ক্ষতি তাৎক্ষণিক দেখা যায় না, তবে এটি দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতের মতো। কাজেই দেরি হলেও ধীরে গাড়ি চালান, দেখে-শুনে রাস্তা পার হোন। জীবনের সব ক্ষেত্রে এ অভ্যাসের চর্চা করুন।

থাকুন হাসিখুশি: হাসি-আনন্দ মনের আয়ু বাড়ায়। জীবনকে পরিপূর্ণ করে। এর মানে, শতবছর বাঁচতে চাইলে হাসিখুশি থাকতে হবে।

বছরে একবার চেকআপ করান: কোনো রোগবালাই না থাকলেও বছরে একবার ‘হেলথ চেকআপ’ বা স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান। পারিবারিক ইতিহাস, জিন, দীর্ঘমেয়াদি রোগ আছে কি না, তা জানুন।

রিডার্স ডাইজেস্ট অবলম্বনে রতন কুমার দাস

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..