বিশ্ব সংবাদ

করোনাভাইরাসে এক দিনে মৃত্যুর রেকর্ড

চীনে মোট আক্রান্তের সংখ্যাও বেড়েছে

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চীনে ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে এক দিনে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। দেশটি হুবেই প্রদেশে বুধবার ২৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর এটি সবচেয়ে ভয়াল দিন বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়া নতুন করে এ ভাইরাসে ১৪ হাজার ৮৪০ জন আক্রান্ত হয়েছে। অথচ আগের দুই দিন এ ভাইরাস মৃত্যু ও আক্রান্তের হার কিছুটা কমেছে বলে মনে করা হচ্ছিল। খবর: সিএনএন, বিবিসি, রয়টার্স।

সব মিলিয়ে করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত প্রায় এক হাজার ৩৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে। এছাড়া বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার জন। এর সিংহভাগই চীনের মূল ভূখণ্ডে। আর চীনে আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশই হুবেই প্রদেশের অধিবাসী। তবে নতুন করে যাদের শরীরে এ রোগের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে তাদেরও সংক্রমিত হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে।

এদিকে জাপানের উপকূলে কোয়ারেন্টাইন করে রাখা বিলাসবহুল ক্রুজ জাহাজটিতে আরও ৪৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে জাহাজটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২১৯ জনে। জাহাজে সর্বমোট তিন হাজার ৭০০ জন অবস্থান করছিল। আরেকটি প্রমোদতরী কম্বোডিয়ার উপকূলে নোঙর করেছে। ওই জাহাজে প্রায় দুই হাজার মানুষ অবস্থান করছে। প্রায় পাঁচটি দেশের কর্তৃপক্ষ অনুমতি না দিলে কম্বোডিয়ায় ভেড়ার অনুমতি পায় জাহাজটি।

করোনাভাইরাসে হঠাৎ করে এভাবে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধিকে চীন ও সারা বিশ্বের জন্য বড় ধরনের সংকট হিসেবে দেখা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার নতুন ধরনের সংজ্ঞার আলোকে এ ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা হিসাব করার পর এ ধরনের সতর্কতার কথা বলা হচ্ছে। নতুন সংক্রমণের খবরে গতকাল এশিয়ার পুঁজিবাজার ছিল অস্থির। এছাড়া জাপানি ইয়েন, স্বর্ণ ও বন্ডের বাজারেও অস্থিরতা দেখা গেছে। পাশাপাশি চীনের অর্থনীতি নিয়ে উদ্বেগ ক্রমেই বাড়ছে। এর আগে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা কমার খবরে কিছুটা চাঙা হয়ে উঠেছিল পুঁজিবাজার।

এর আগে আরএনএ টেস্টের মাধ্যমে নিশ্চিত হলেই কেবল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে ধরা হচ্ছিল। এটি সম্পন্ন করতে একাধিক দিনের প্রয়োজন হচ্ছিল। তবে নতুন করে সিটি স্ক্যানের মাধ্যমে ফুসফুসের সংক্রমণ দেখা গেলে তাদেরও করোনাভাইরাস সংক্রমিত হিসেবে অভিহিত করা হচ্ছে। এর আগে শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ দেখা গেলে এবং পরীক্ষা করে ভাইরাসের উপস্থিতি পেলেই কেবল তাকে সংক্রমিত বলা হচ্ছিল। নতুন সংজ্ঞায়নের কারণেই আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

চীনের সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নতুন পরীক্ষা পদ্ধতি শুধু হুবেই প্রদেশে প্রয়োগ করা হচ্ছে। নতুন করে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির খবর প্রকাশিত হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুই শীর্ষ কর্মকর্তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর আগে এ রোগের প্রাদুর্ভাব ও ব্যাপ্তির তথ্য প্রকাশ নিয়ে চীনের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ ওঠে। উহানে গত বুধবার মৃত ২৪২ জনের মধ্যে ১৩৫ জনই ছিল নতুন সংজ্ঞায়িত কোভিড-১৯ আক্রান্ত।

নতুন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের কোভিড-১৯ বলে অভিহিত করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এর পূর্ণরূপ ‘করোনাভাইরাস রোগ, ২০১৯’। হুবেইতে বর্তমানে ৪৮ হাজার ২০৬ জন নিশ্চিত কোভিড-১৯ রোগী রয়েছে। প্রদেশটির নতুন আক্রান্ত ১৪ হাজার ৮৪০ জনের মধ্যে ১৩ হাজার ৩৩২ জনকেই নতুন সংজ্ঞার অধীনে সংক্রমিত বলে অভিহিত করা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..