আজকের পত্রিকা দিনের খবর পুঁজিবাজার শেষ পাতা

করোনা ইস্যুতে ভারি হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের দুচিন্তা

মানবেতর জীবনের আশঙ্কা বাড়ছে

মুস্তাফিজুর রহমান নাহিদ: বিশ্ব জুড়ে চলছে কোভিড-১৯ করোনাভাইরাসের তান্ডব। ইতিমধ্যে বিশ্বের প্রায় ২০০টি দেশে আঘাত হেনেছে এই মরণঘাতি ভাইরাস। চীন, স্পেন, ইতালি, যুক্তরাজ্য ছাড়িয়ে ভাইরাসটির কবলে পড়েছে বাংলাদেশেও। গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হয়ার পর দেশ জুড়ে বাড়তি সর্তকতা অবলম্বন করা হয়। এই সর্তকতার আওতায় বর্তমানে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ন্যায় বন্ধ রয়েছে দেশের পুঁজিবাজার। এতে দুচিন্তা ভারি হচ্ছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের। দিন যত যাচ্ছে তাদের দুচিন্তাই ততই ভারি হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, যে সকল বিনিয়োগকারীর শেয়ার ব্যবসা ছাড়া অন্য কোনো আয় নেই তাদের দুচিন্তাই বেশি। কারণ এই ব্যবসা করেই তাদের সংসার চালাতে হয়। ইতিমধ্যে তাদের অনেকেরই অর্থ কষ্ট শুরু হয়েছে। করোনার তান্ডব দীর্ঘমেয়াদী হলে তাদের অবস্থা আরও খারাপ হবে মনে করছেন তারা।

বিষয়টি জানতে যোগাযোগ করা হলে জয়তুন ব্রোকারেজ হাউজ ইন্টারন্যাশনালের কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, বহুদিন থেকে পুঁজিবাজারের অবস্থা ভালো নয়। ফলে যে সকল বিনিয়োগকারী শুধুমাত্র এই ব্যবসার ওপর নির্ভর ছিল তারা আর্থিকভাবে সমস্যায় ছিলেন। পরবর্তীতে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর তাদের দুচিন্তা আরও বেড়েছে।

এদিকে পুঁজিবাজার বন্ধ থাকায় বেশিরভাগ বিনিয়োগকারীই গ্রামের বাড়িতে চলে গেছেন। তাদের ঢাকায় ফেরা নির্ভর করছে লকডাউন ওঠে যাওয়া এবং পুঁজিবাজারে লেনদেন চালু হওয়ার ওপর। এ বিষেয়ে কথা হয় লুৎফর রহমান নামে এক বিনিয়োগকারীর সাথে। কুষ্টিয়া থেকে তিনি মুঠোফোনে জানান, পুঁজিবাজার বন্ধ হওয়ার পরপরই গ্রামের বাড়িতে চলে এসেছি। বাজার চালু হলে আবার ঢাকায় ফেরার ইচ্ছে। তিনি বলেন, এখন দুই ধরনের ঝুঁকিতে রয়েছি। একটি জীবনের ঝুঁকি অন্যটি পুঁজি আটকে পড়ার ঝুঁকি।

অন্যদিকে করোনাভাইরাস দীর্ঘমেয়াদী হলে বিনিয়োগকারীদের মানবেতর জীবনযাপন করতে হবে এমন আশঙ্কা করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। জানতে চাইলে বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুর রাজ্জাক শেয়ার বিজকে বলেন, ইতিমধ্যে অনেক বিনিয়োগকারী অর্থ কষ্টে পড়েছেন। ফোন করে অনেকেই আমাকে এই বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বাজারে এমন কিছু বিনিয়োগকারী রয়েছেন তারা অন্যের টাকা নিয়ে ব্যবসা করেন। এরা সাধারণত বড় পোর্টফোলিও পরিচালনা করেন। মাস শেষে এরা শুধু একটা লভ্যাংশ বা নিদিষ্ট অর্থ পায়। এটা দিয়েই তাদের সংসার চলে। ফলে এই ধরনের বিনিয়োগকারীই সবচেয়ে সমস্যার মধ্যে পড়েছেন।

এ বিষয়ে ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী শেয়ার বিজকে বলেন, পুঁজিবাজার বন্ধ থাকার কারণে কিছু বিনিয়োগকারী সমস্যার মধ্যে রয়েছেন এ কথা ঠিক। কিন্তু এখন সবার আগে লাইফ সেইফ করার কথা ভাবতে হবে। সবার আগে তো বেঁচে থাকা। আশা করছি বিনিয়োগকারীরাও আমার সাথে একমত হবেন।

###

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..