প্রচ্ছদ শেষ পাতা

কর আদায় ২৮২ কোটি টাকা তিন লাখ ব্যক্তিকে সেবা

আয়কর মেলার চতুর্থ দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: আয়কর মেলার চতুর্থ দিন সারা দেশে প্রায় তিন লাখ ব্যক্তিকে করসেবা দেওয়া হয়েছে। আর কর আদায় হয়েছে প্রায় ২৮২ কোটি টাকা। গতকাল ঢাকাসহ সারা দেশে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে মেলা চলে। রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিন উৎসবমুখর পরিবেশে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন করদাতারা। সকাল থেকে মেলায় করদাতাদের ঢল নামে। জনসমাগমে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে করদাতাদের সংখ্যা বাড়তে থাকে। মেলা শেষের সময় যত ঘনিয়ে এসেছে, করদাতার সংখ্যাও তত বেড়েছে। এছাড়া ঢাকার বাইরেও আয়কর মেলায় করদাতারা দীর্ঘলাইনে দাঁড়িয়ে সেবা গ্রহণ করেছেন। এনবিআরের পক্ষ থেকে সেবা প্রদানে কোনো ধরনের ঘাটতি ছিল না। এ বছর দেশের আটটি বিভাগ, ৫৬টি জেলা, ৫৬টি উপজেলাসহ মোট ১২০টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

মেলা সূত্র জানায়, মেলার চতুর্থ দিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ২৮২ কোটি ৫৭ লাখ ১০ হাজার ৫৭৯ টাকা। ৯২ হাজার ৯১৬টি রিটার্ন দাখিল হয়েছে। সেবা গ্রহণ করেছেন দুই লাখ ৯২ হাজার ৫২৫ জন। আর নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন নিয়েছেন চার হাজার ৫৬২টি। গত চার দিনে মেলায় মোট এক হাজার ৩৪৬ কোটি ৮০ লাখ ২৫ হাজার ৫১২ টাকা আয়কর সংগ্রহ করা হয়েছে। তিন লাখ ১৪ হাজার ৫৬৫টি রিটার্ন দাখিল হয়েছে। সেবা গ্রহণ করেছেন ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৯০৭ জন। আর নতুন ই-টিআইএন নিবন্ধন নেওয়া হয়েছে ১৬ হাজার ৫৪১টি।

সূত্র আরও জানায়, মেলার পরিধি গত বছরের মেলার চেয়ে কয়েক গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ, ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং ও ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলার বিশেষ আকর্ষণ মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহণ করে সম্মানিত করদাতারা রকেট, নগদ, বিকাশ ও প্রযোজ্য শিওর ক্যাশের মাধ্যমে আয়কর জমা দিতে পারছেন। করদাতাদের সুবিধার্থে এবারই প্রথমবারের মতো আয়কর মেলার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছে। মেলায় রিটার্ন দাখিল, কর আহরণ, সেবা গ্রহণকারী ও নতুন ই-টিআইএন গ্রহণের সংখ্যা বিগত বছরের মেলার তুলনায় উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

আয়কর মেলার আহ্বায়ক ও এনবিআর সদস্য (কর প্রশাসন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) কালিপদ হালদার বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে করদাতারা কর দিচ্ছেন। কোনো ধরনের সমস্যা হচ্ছে না। করমেলার সেবা কর অঞ্চলেও থাকবে।

এনবিআর সূত্র জানায়, ১৪ নভেম্বর মেলা শুরু হয়ে চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত। এর মধ্যে রাজধানীসহ সব বিভাগীয় শহরে সাত দিন, জেলা শহরগুলোতে চার দিন, ৪৮ উপজেলায় দুই দিন এবং আট উপজেলায় দিনব্যাপী করমেলা আয়োজন করা হবে। এবারের কর মেলার সেøাগানÑ‘সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর।’ রাজধানীতে মেলা হবে বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে। ঢাকার মেলায় এবার করদাতাদের সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর মধ্যে যেক্ষেত্রে গত বছর হেল্পডেক্স ৩৩টি ছিল, এবার সেখানে থাকবে ৫৩টি; ই-টিআইএন জোন গত বছর ছিল এক হাজার বর্গফুট, এবার হবে দুই হাজার ২৫০ বর্গফুট এবং রিটার্ন বুথ গত বছর ছিল ৪৯টি, এবার থাকবে ৫২টি। রিটার্ন পূরণের স্থান দুই হাজার ৫০০ বর্গফুট থেকে বৃদ্ধি করে সাত হাজার বর্গফুট করা হয়েছে। বেসিক ব্যাংক বুথ তিনটি থেকে বৃদ্ধি করে চারটি ও এটিএম বুথ একটি থেকে বৃদ্ধি করে দুটি করা হয়েছে। মিডিয়া সেন্টার ও মেডিক্যাল বুথের জায়গা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..