সম্পাদকীয়

কাঁচাপাট প্রক্রিয়াকরণে বিকল্প উপায় উদ্ভাবন করুন

ভুট্টার চাষে কাক্সিক্ষত দাম না পাওয়ার পরেই আবার ধান চাষে লোকসান গুনতে হয়েছিল ঝিনাইদহ অঞ্চলের কৃষকদের। টানা দুই মৌসুমের হতাশা ও লোকসান কাটিয়ে উঠতে জেলাটির কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষকরা পাট চাষ করে বিপদে আটকে পড়েছেন। বৃষ্টি বা অন্য কোনো প্রাকৃতিক পানির অভাবে তারা পাট প্রক্রিয়াজাত করতে পারছেন না। কেবল ঝিনাইদহে নয়, পাট নিয়ে প্রায় সারা দেশের কৃষকরা এমন বিপাকে পড়েছেন। কৃষকদের এই শোচনীয় পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাষ্ট্রীয় উদ্যোগ দেখা যায়নি। দেশের এই আর্থসামাজিক কাঠামো অটুট রাখতে কৃষি খাতের প্রতি এমন অবহেলা ভুলে যথাযথ উদ্যোগ নেওয়ার বিকল্প নেই।
দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কৃষকদের পাট ক্ষেতেই শুকিয়ে নষ্ট হচ্ছে। উপরন্তু পাটের দামে পড়ন্ত ধারা বইছে। বস্তুত দেশের অন্যান্য পেশাজীবী বা আর্থিক কাঠামোর মতো কৃষকদের নেই কোনো সমিতি, সংঘ কিংবা পরিষদ। তাদের সুবিধা-অসুবিধার কথা যথাসময়ে-যথাস্থানে তুলে ধরার কেউ নেই। অথচ দেশের প্রধান আর্থিক খাত হিসেবে কৃষিখাতের গুরুত্ব বিবেচনার সরকারি ঐতিহ্য রয়েছে। রয়েছে এই আর্থ-বাণিজ্যিক সামাজিক খাতের উন্নয়নে বড় বাজেটের কৃষি মন্ত্রণালয়। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন যাবতীয় সচেতনতা ও সহায়তা কর্মসূচির সুবিধা তৃণমূলের সিংহভাগ কৃষকরা পায় না। একটি অঞ্চলের হাতেগোনা কিছু কৃষক নিয়ে একটি মডেল কৃষি করেই তারা দায়িত্ব শেষ করেন। ফলে কৃষকরা ঐতিহ্যবাহী পেশা হিসেবে কেবল গৃহস্থালি থেকে খাবারের চাহিদা মেটানোর ন্যূনতম সুবিধার বিনিময়ে কৃষিকাজ চালিয়ে যাচ্ছে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম। অথচ তাদের উৎপাদিত ফসল বা কৃষিপণ্যের বাণিজ্য করে ব্যবসায়ী সমাজ দেশের সিংহভাগ অর্থের মালিক বনে যাচ্ছে। আর্থিক কাঠামোয় এই বৈষম্য ঠেকানো সুদূর পরাহত তাদের ন্যূনতম অধিকার নিয়ে কথা বলার নেই কোনো পাটাতন বা উদ্যোগ। ফলে কৃষকদের অনেকেই জমি ইজারা দিয়ে ভিন্ন পেশায় স্থানান্তরিত হচ্ছেন। এভাবে চলতে থাকলে দেশের কৃষি খাত নষ্ট হবে। পাটের সংকট সমাধায় সরকার কোনো উদ্যোগ না নিলে কৃষকদের গলায় ফাঁস পরার পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। ঋণের অর্থ, পারিবারিক খরচ এবং পরবর্তী মৌসুমের কৃষি খরচ মিটমাট করার সক্ষমতা তারা হারিয়েছে। লাগাতার তিন মৌসুমে লোকসানে থাকা এই কৃষক সমাজের প্রণোদনা দেয়া এখন রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব। উদ্ভূত সংকট নিরসনে আধুনিক উপায় ব্যবহার করে পাট প্রক্রিয়ার কৌশল সরবরাহের উদ্যোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে। তাছাড়া সহজ শর্তে ঋণ ও ন্যায্য দামে পাট কেনার উদ্যোগ নিলে তারা উপকৃত হবে।

সর্বশেষ..