কিস্তিতে সেট টপ বক্স কেনার বিষয়ে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: এককালীনের পাশাপাশি কিস্তিতেও যাতে সেট টপ বক্স কেনার সুযোগ থাকে, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। গতকাল কেব্ল অপারেটরদের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরে কেব্ল অপারেটিং পদ্ধতি ডিজিটাল করার সময় বেঁধে দেয়া হয়। অগ্রগতি কতটুকু সেটি পর্যালোচনা করেছি। কেব্ল অপারেটররা বলেছেন, সারাদেশে গ্রাহকদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি হয়েছে। ফিড অপারেটররাও সেট টপ বক্স কেনার জন্য বিনিয়োগ করেছে। কেব্ল অপারেটিং পদ্ধতি ডিজিটালাইজড হলে গ্রাহক ভালোমতো টেলিভিশন দেখতে পারবেন। বছরে ১৫০০ থেকে ১৮০০ কোটি টাকা সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। সব গ্রাহককে ডিজিটালাইজড করতে পারলে এ টাকা সরকার রাজস্ব পাবে। কেব্ল অপারেটররাও তাদের পাওনা সঠিকভাবে পাচ্ছে না। টেলিভিশনগুলোও তখন পে-চ্যানেল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে পারবে।

ড. হাসান আরও বলেন, এরই মধ্যে এক রিটের শুনানি নিয়ে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরের কেব্ল নেটওয়ার্ক ডিজিটাল করা নিয়ে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারে মন্ত্রণালয় কাজ করছে, আশা করছি স্থগিতাদেশ উঠে যাবে। আদেশ ওঠে গেলে আমরা আবার বসে সময় কতটুকু বাড়ানো যায় সেটা ঠিক করব। গ্রাহকপর্যায়ে প্রস্তুতি দেখে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

তিনি বলেন, সব ধরনের গ্রাহকরা যাতে সহজে বিভিন্ন মানের সেট টপ বক্স পায় সে বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। প্রয়োজন ও সামর্থ্য অনুযায়ী যাতে সেট টপ বক্স কিনতে পারেন সে আলোচনাও হয়েছে। এককালীনের পাশাপাশি কিস্তিতেও যাতে সেট টপ বক্স কেনার সুযোগ থাকে সেটি নিয়েও আলোচনা করেছি। সরকারি কোনো সংস্থার মাধ্যমে দেশেও এটি উৎপাদন করা যায় কি নাÑতা নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

কেব্ল অপারেটিং ডিজিটাল করতে রিট ছাড়া অন্য কোনো জটিলতা আছে কি নাÑএ প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, কেব্ল অপারেটররা প্রস্তুতি নিয়েছেন। ডিজিটাল হেডএন্ড বসানোর কাজটি তাদের করতে হয়। সেটি তারা অলমোস্ট সারাদেশে করেছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম ছাড়াও মেট্রোপলিটন শহরসহ অন্য শহরেও করেছেন। কিন্তু শুধু ডিজিটাল হেডএন্ড বসলেই কেব্ল অপারেটিং সিস্টেম ডিজিটাল হবে না, প্রত্যেকটা গ্রাহকের কাছে সেট টপ বক্স থাকতে হবে, তবেই কেব্ল অপারেটিং সিস্টেমটা ডিজিটালাইজড হবে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, গ্রাহকপর্যায়ে এখনও সবাই সেট টপ বক্স ক্রয় করেননি বা সবাইকে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। দেশে স্টক ও সাপ্লাইয়ের বিষয় আছে। কত শতাংশ গ্রাহকের কাছে সেট টপ বক্স আছে সে পরিসংখ্যান তারা দিতে পারেনি, তবে অনেক গ্রাহকের কাছে এখনও সেট টপ বক্স নেই। গ্রাহকের কাছে না থাকলে অপারেটিং সিস্টেম ডিজিটাল করা সম্ভব নয়। সেট টপ বক্স সংগ্রহ করতে গ্রাহক যাতে আরেকটু সময় পায় সেজন্য সময় বাড়ানোর বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯৪৫  জন  

সর্বশেষ..