ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়ে ‘চীনকে বার্তা’ ভারতের

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চীন-ভারতের সীমান্ত উত্তেজনার মধ্যে ‘অগ্নি-৫’ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে ভারত। ক্ষেপণাস্ত্রটির সফল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে চীনের একেবারে উত্তরাঞ্চলের এলাকাগুলোও ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রের সীমানার মধ্যে এলো। স্থানীয় সময় গত বুধবার সন্ধ্যা ৭টা ৫০ মিনিটে দেশটির ওড়িশা রাজ্যের উপকূলসংলগ্ন এপিজে আবদুল কালাম দ্বীপ থেকে আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করা হয়। ভারতের এ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাকে আঞ্চলিক প্রতিপক্ষ চীনের প্রতি একটি হুঁশিয়ারি বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। খবর: টাইমস অব ইন্ডিয়া, বিবিসি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘অগ্নি-৫’ ভূমি থেকে ভূমিতে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রটি পাঁচ হাজার কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যে আঘাত হানতে সক্ষম। এর মাধ্যমে চীনের উত্তরাঞ্চলীয় অনেক এলাকা ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রের আওতার মধ্যে চলে আসায় বিশ্লেষকদের অনেকেই একে ‘বেইজিংয়ের জন্য দিল্লির বার্তা’ হিসেবে বিবেচনা করছেন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বিভিন্ন সীমান্তে চীন-ভারতের মধ্যে তুমুল উত্তেজনা দেখা গেছে। গত বছর লাদাখ সীমান্তে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষে ভারতেরই ২০ সেনার প্রাণ গেছে। চীনের হুমকি মোকাবিলায় ভারত সম্প্রতি অরুণাচল সীমান্তেও সৈন্য বাড়িয়েছে।

‘অগ্নি-৫’ নামের এ ক্ষেপণাস্ত্রকে চলমান উৎক্ষেপণ যানের মাধ্যমেও উৎক্ষেপণ করা যাবে। সাড়ে ১৭ মিটার দৈর্ঘ্যরে এবং দুই মিটার পরিধিবিশিষ্ট ‘অগ্নি-৫’ ক্ষেপণাস্ত্র অ্যান্টি ব্যালিস্টিক মিসাইল সিস্টেমকেও ধোঁকা দিতে সক্ষম। এছাড়া ১৫ হাজার কেজি পরমাণু অস্ত্র বহনেও এটি সক্ষম। ক্ষেপণাস্ত্রে তিন স্তরের রকেট বুস্টার আছে। এর গতি শব্দের চেয়ে ২৪ গুণ বেশি। সেকেন্ডে আট দশমিক ১৬ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করবে এ ক্ষেপণাস্ত্রটি।

এত আধুনিক প্রযুক্তির কারণে এ ক্ষেপণাস্ত্রটি একটি অন্য মাত্রা পেয়েছে। এ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা ভারতের অস্ত্রভাণ্ডারের শক্তিকে আরও বাড়িয়ে তুলল। একই সঙ্গে চীন ও পাকিস্তানের কাছেও একটা কঠোর বার্তা দেয়া সম্ভব হয়েছে বলেও মনে করছে দেশটি। দাবি করা হচ্ছে, এ ক্ষেপণাস্ত্রের আওতায় রয়েছে পুরো এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকার কিছু অংশ।

নয়া দিল্লি বলছে, এ ‘অগ্নি-৫’ ক্ষেপণাস্ত্রে তিন স্তরের সলিড ফুয়েলড ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে। ক্ষেপণাস্ত্রটি লক্ষ্যে নিখুঁতভাবে আঘাত হানতে সক্ষম বলেও দাবি করেছে তারা।

অগ্নি সিরিজের ক্ষেপণাস্ত্রগুলো তৈরি করেছে ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থা ডিআরডিও। তাদের ‘অগ্নি-১’ ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা ৭০০ কিলোমিটার, ‘অগ্নি-২’-এর দুই হাজার কিলোমিটার, ‘অগ্নি-৩’ পাড়ি দিতে পারে আড়াই হাজার কিলোমিটার আর ‘অগ্নি-৪’-এর পাল্লা সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটারের বেশি।

ভারত ২০১২ সালে প্রথম ‘অগ্নি-৫’ ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছিল। চলতি বছরের জুনে ভারত পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম ‘অগ্নি প্রাইম’ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রেরও পরীক্ষা চালিয়েছিল।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯০  জন  

সর্বশেষ..