প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

খেলাপি ঋণগ্রহীতা ৩ লাখ ৩৪ হাজার: সংসদে অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে বর্তমানে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে ঋণখেলাপি গ্রাহকের সংখ্যা হচ্ছে তিন লাখ ৩৪ হাজার ৯৮২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। এ তথ্য ২০২০ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বলে জাতীয় সংসদে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

গতকাল জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিলের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকের শুরুতে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপন করা হয়।

সরকারি দলের সদস্য একেএম রহমতুল্লাহর প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশ থেকে পণ্য অমদানি-রপ্তানির সময়ে অতিমূল্যায়ন বা অবমূল্যায়নের মাধ্যমে অর্থ পাচারের কিছু অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। যেসব ক্ষেত্রে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে, সেসব ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়টি চলমান রয়েছে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য মামুনুর রশীদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের টিকা কেনার জন্য এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। জাতীয় পার্টির শামীম হায়দার পাটোয়ারীর প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত আদায় হয়েছে ১ লাখ ৮ হাজার ৪৭১ কোটি ৭১ লাখ টাকা। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় অর্জন ৩২ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

শহীদুজ্জমান সরকারের প্রশ্নের জবাবে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার জানান, দেশের চারটি মোবাইল অপারেটরের কাছে বিটিআরসির বকেয়া রয়েছে ১৩ হাজার ২২ কোটি ৩৮ লাখ ৬৫ হাজার ৯৩৪ টাকা। অপারেটরগুলো হলো গ্রামীণফোন, রবি, সিটিসেল (বর্তমানে বন্ধ) ও রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিটক। এগুলোর মধ্যে গ্রামীণফোন ও রবির কাছে বকেয়া অডিট আপত্তিসংক্রান্ত। আর সিটিসেলের বকেয়া উচ্চ আদালত নির্ধারিত। আর টেলিটকের কাছে পাওনা থ্রিজি তরঙ্গ বরাদ্দ বাবদ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..