সারা বাংলা

গাজীপুরে ভুয়া ডাক্তারের কারাদণ্ড

প্রতিনিধি, গাজীপুর: ডাক্তার না হয়েও রোগীকে প্রেসক্রিপশন দেয়ার অভিযোগে গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলায় এক ব্যক্তিকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। রোববার রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোসা. ইসমত আরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এই কারাদণ্ড দেন।

দণ্ডিত মো. জালাল উদ্দিন উপজেলার চালাবাজার এলাকার মো. হাসান আলীর ছেলে।

ইউএনও জানান, জালাল উদ্দিন চালাবাজারে মায়া ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড ক্লিনিক সেন্টার খুলেছেন। তিনি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাস করলেও ওই ক্লিনিকে বসে শিশু ও নারীদের নানা রোগের চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্র দিতেন। রোববার সন্ধ্যায় চিকিৎসা নিয়ে বের হওয়ার পর একটি শিশুর ব্যবস্থাপত্র জব্দ করে ক্লিনিকে জালাল উদ্দিনকে দেখালে তা তারই বলে স্বীকার করেন।

জালাল উদ্দিন জানান, ক্লিনিকে ডাক্তারের অবর্তমানে ওই শিশুকে তিনি এ প্রেসক্রিপশন দিয়েছেন। পরে একপর্যায়ে তিনি স্বীকার করেন, তিনি ডিগ্রিপ্রাপ্ত কোনো চিকিৎসক নন। ২০০৫ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন একটি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাস করেছেন।

ইউএনও জানান, চার মাসের ওই শিশুকে ব্যবস্থাপত্রে যে ওষুধ দেয়া হয়েছে, তা ছয় বছর বয়সী শিশুর বেলায় প্রযোজ্য বলে জানিয়েছেন কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন। তাই চিকিৎসক না হয়েও এ ধরনের ব্যবস্থাপত্র দেয়ার অভিযোগে জালাল উদ্দিনকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..