শেষ পাতা সুশিক্ষা

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ফি বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত আবেদনে শিক্ষার্থীদের গুনতে হবে ৬০০ টাকা করে। চূড়ান্ত আবেদনে ৫০০ টাকা নেয়ার কথা থাকলেও গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সমন্বয়ে গঠিত ভর্তি কমিটির পঞ্চম সভায় আবেদন ফি ১০০ টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়।

যোগ্যতা অনুযায়ী সব শিক্ষার্থী প্রাথমিক আবেদন করতে পারলেও একযোগে যতজন শিক্ষার্থীর পরীক্ষা নেয়া যাবে, মেধার ভিত্তিতে ততজনকে চূড়ান্ত আবেদনের সুযোগ দেয়া হবে। ১৫ এপ্রিল রাত ১২টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। চূড়ান্ত আবেদনের জন্য যোগ্য শিক্ষার্থীদের ফল জানানো হবে ২৩ এপ্রিল।

এরপর মনোনীতদের ২৪ এপ্রিল থেকে ২০ মে’র মধ্যে চূড়ান্ত আবেদন করতে হবে। শিক্ষার্থীরা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আবেদন ফি দিতে পারবেন।

সমন্বিত ভর্তি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক কামালউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে সভায় গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপচার্যরা উপস্থিত ছিলেন। গুচ্ছভুক্ত ২০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা আগামী ১৯ জুন থেকে শুরু হবে।

গত ৮ মার্চ গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের সমন্বয়ে গঠিত ‘কোর কমিটি’র তৃতীয় সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সে সময় জানানো হয় গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় ভর্তির পরীক্ষার জন্য প্রাথমিক আবেদন গ্রহণ ১ এপ্রিল শুরু হবে এবং ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

‘কোর কমিটি’র যুগ্ম আহ্বায়ক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভাটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সে সময় জানানো হয়, যেসব শিক্ষার্থীদের ন্যূনতম যোগ্যতা থাকবে তারা সবাই প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। ২০১৯ ও ২০২০ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা এ পদ্ধতিতে আবেদন করতে পারবে।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আবেদনের জন্য বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের জিপিএ ৮, বাণিজ্যের সাড়ে ৭ এবং মানবিকের শিক্ষার্থীদের জিপিএ ৭ থাকতে হবে। তবে ভর্তিচ্ছুদের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের জিপিএ ন্যূনতম সাড়ে ৩ করে থাকতে হবে। যেসব শিক্ষার্থী দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষা দিতে ইচ্ছুক, তারা এ বছর পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পেলেও পরবর্তীতে গুচ্ছ পদ্ধতিতে এ সুযোগ থাকবে না।

সব পরীক্ষা নির্দিষ্ট পরীক্ষা কেন্দ্রে একযোগে দুপুর ১২টায় শুরু হবে এবং একজন শিক্ষার্থী কমপক্ষে পাঁচটি পরীক্ষা কেন্দ্র নির্বাচন করতে পারবেন। ২০১৯ সালের পাস করা শিক্ষার্থীরা বর্তমানে অধ্যয়নরত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে ‘কেন্দ্র’ হিসেবে পছন্দ করতে পারবেন না। প্রয়োজনে পছন্দকৃত নির্দিষ্ট কেন্দ্রের বাইরেও পরীক্ষা দিতে হতে পারে। আবেদনকারীরা ১ জুন হতে ১০ জুন তারিখের মধ্যে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন বলে জানানো হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..