Print Date & Time : 2 July 2022 Saturday 10:18 am

গ্রামীণফোনের লেনদেন চালু আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক: তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের কোম্পানি গ্রামীণফোন লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন চালু হচ্ছে আজ। গত সোমবার রেকর্ড ডেটের কারণে এর লেনদেন বন্ধ ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

উল্লেখ্য, ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ২০০৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ৯০ শতাংশ চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করে। এর আগে কোম্পানিটি ৮৫ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল। সে হিসাবে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ১৭৫ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছে। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৬ টাকা ৬৮ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ৮৬ পয়সা। আগের বছর একই সময় যা ছিল যথাক্রমে ১৪ টাকা ৫৯ পয়সা ও ২২ টাকা ৬৮ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য  আগামী ২০ এপ্রিল সকাল ১০টায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি) হল-১, জোয়ারসাহারা, খিলক্ষেত, ঢাকায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন চার হাজার কোটি টাকা; পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ৩৫০ কোটি ৩০ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ১৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। কোম্পানিটি ২০১৫ সালের জন্য ১৪০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। এ সময় ইপিএস ছিল ১৪ টাকা ৫৯ পয়সা এবং এনএভি ২২ টাকা ৬৮ পয়সা। কর-পরবর্তী মুনাফা এক হাজার ৯৭০ কোটি ৬৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা, যা আগের বছর একই সময় ছিল এক হাজার ৯৮০ কোটি ৩২ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে চার টাকা ৭৮ পয়সা এবং কর-পরবর্তী মুনাফা করেছিল ৬৪৪ কোটি ৭৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে তিন টাকা ৭৭ পয়সা এবং কর-পরবর্তী মুনাফা ৫০৯ কোটি দুই লাখ ১০ হাজার টাকা।  প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস ছিল চার টাকা ১৫ পয়সা এবং কর-পরবর্তী মুনাফা ৫৬০ কোটি ৯৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা। সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারমূল্য আয় (পিই) অনুপাতে ২১ দশমিক ৮৮ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ১৯ দশমিক ১৪ টাকা।

কোম্পানিটির মোট ১৩৫ কোটি তিন লাখ ২২টি শেয়ার রয়েছে। মোট শেয়ারের মধ্যে ৯০ শতাংশ উদ্যোক্তা ও পরিচালক, চার দশমিক ৯৮ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, দুই দশমিক ৬৪ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগকারী এবং বাকি দুই দশমিক ৩৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।