প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

গ্রামীণফোন ও মেঘনা লাইফের লভ্যাংশ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক: গ্রামীণফোন লিমিটেড ছয় মাসের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন ও মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ হিসাববছরের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গ্রামীণফোন: চলতি হিসাববছরের প্রথম ছয় মাসের (জানুয়ারি-জুন ’১৭) মুনাফার ওপর ভিত্তি করে ১০৫ শতাংশ নগদ অন্তর্বর্তীকালীন লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে গ্রামীণফোন লিমিটেড যে মুনাফা করেছে, তার ৯৮ শতাংশই লভ্যাংশ হিসেবে দিয়ে দিচ্ছে।

আলোচিত সময়ে কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) করেছে ১০ টাকা ৭২ পয়সা। এ সময়ে শেয়ারপ্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো ছিল ২৩ টাকা ২৩ পয়সা। ৩০ জুন, ২০১৭ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়ায় ২৬ টাকা ৫৯ পয়সা।

অন্তর্বর্তীকালীন লভ্যাংশের জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২ আগস্ট। অর্থাৎ ওই তারিখ পর্যন্ত যেসব বিনিয়োগকারীর কাছে শেয়ার থাকবে, কেবল তারাই লভ্যাংশ পাওয়ার জন্য যোগ্য হবেন।

‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ২০০৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানিটি ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ৯০ শতাংশ চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর আগে কোম্পানিটি ৮৫ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল। সে হিসাবে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য মোট লভ্যাংশের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৭৫ শতাংশ। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৬ টাকা ৬৮ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৪ টাকা ৮৬ পয়সা। আগের বছর একই সময় যার পরিমাণ ছিল যথাক্রমে ১৪ টাকা ৫৯ পয়সা ও ২২ টাকা ৬৮ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী আয় করেছে দুই হাজার ২৫২ কোটি ৬৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

কোম্পানির চার হাজার কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ৩৫০ কোটি ৩০ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ২২২ কোটি ৭২ লাখ টাকা। ২০১৫ সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১৪০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। এ সময় ইপিএস করেছিল ১৪ টাকা ৫৯ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ৬৮ পয়সা। কর-পরবর্তী মুনাফা করেছিল এক হাজার ৯৭০ কোটি ৬৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা, যা আগের বছর একই সময় ছিল এক হাজার ৯৮০ কোটি ৩২ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ার মূল্য-আয় (পিই) অনুপাতে ২১ দশমিক ৮৯ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ১৭ দশমিক ৩।

কোম্পানিটির মোট ১৩৫ কোটি তিন লাখ ২২টি শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালক ৯০ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক চার দশমিক ৮২ শতাংশ, বিদেশি তিন দশমিক ১৪ শতাংশ এবং বাকি দুই দশমিক শূন্য চার শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।

মেঘনা লাইফ: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) মেঘনা-কর্র্ণফুলী বিমা ভবন, ১১/বি, ১১/ডি টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২ আগস্ট।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য কোম্পানিটি ২০ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল, যা আগের বছর ছিল ১৩ শতাংশ নগদ ও ২০ শতাংশ বোনাস।

২০০৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ‘এ’ ক্যাটাগরির এ কোম্পানি। কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ৬০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৩১ কোটি ৯২ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির মোট তিন কোটি ১৯ লাখ ২৫ হাজার ৬৩২টি শেয়ার রয়েছে। মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালক ১৮ দশমিক ৪৩ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ৪০ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৪১ দশমিক ৫৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।