এসএমই

গ্রামীণফোন ক্লাউড স্টোর

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের ডিজিটাল রূপান্তর ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে ডিজিটাল রূপান্তর করতে ক্লাউড স্টোর চালু করেছে গ্রামীণফোন। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) আয়োজিত বেসিস সফট এক্সপোতে ‘গ্রামীণফোন ক্লাউড স্টোর’ নামের এ প্ল্যাটফর্মটি উম্মোচন করা হয়।

আধুনিকায়নের মাধ্যমে সেবার মান বাড়ানোর লক্ষ্যে গ্রামীণফোনের ধারাবাহিক প্রচেষ্টার ফল এটি। এ ক্লাউড স্টোর একটি অনলাইন মার্কেটেপ্লেস, যা বাংলাদেশের ওয়ান-স্টপ সাস (সফটওয়্যার-এজ-এ-সার্ভিস) প্ল্যাটফর্ম হিসেবে প্রথম বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বেসিসের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ফাইন্যান্স) মুশফিকুর রহমান ও বিশেষ অতিথি ছিলেন গ্রামীণফোনের চিফ বিজনেস অফিসার মাহমুদ হোসেন। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের অনেক এসএমই উদ্যোগ ম্যানুয়ালি তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করে। এসএমই খাতের প্রায় চা লাখ ৫০ হাজার প্রতিষ্ঠান তাদের কার্যক্রমকে অ্যানালগ থেকে ডিজিটালে রূপান্তরিত করার চেষ্টা করছে। অন্যদিকে প্রায় দুই লাখ ৫০ হাজার দেশীয় সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান নানা ধরনের অ্যাপ তৈরি করছে। তাদের পণ্যকে ব্যবসায়িকভাবে বাজারে আনার ক্ষেত্রে অংশীদার হিসেবে একটি ক্লাউডভিত্তিক গো-টু-মার্কেট সহায়তা করছে গ্রামীণফোন।

প্রতিষ্ঠানগুলোর ক্ষমতায়নে গ্রামীণফোন তাদের গ্রাহকদের ক্লাউড স্টোরের মাধ্যমে বিস্তৃত পরিসরের সফটওয়্যার অ্যাপ ও সংশ্লিষ্ট সেবা দেবে। এ প্ল্যাটফর্মটি সফটওয়্যার বা  অ্যাপসেবাদানকারী ও ব্যবহারকারীদের একই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত করবে।

এটি একটি একক প্ল্যাটফর্ম হবে, যা নানা সফটওয়্যার অ্যাপ ও সেবার বিক্রি এবং বিতরণ-সম্পর্কিত সব প্রক্রিয়া স্বয়ংক্রিয় করে তুলতে সাহায্য করবে। এখানে অন্তর্ভুক্ত থাকবে অ্যাগ্রিগেশন, ক্যাটেলগিং, প্রভিশনিং, অ্যাকসেস কন্ট্রোল, সিকিউরিটি, অডিটিং, মনিটরিং, মিটারিং, বিলিং, অ্যাডমিনিস্ট্রেটিং ও ইউজার সাপোর্ট।

গ্রামীণফোনের চিফ বিজনেস অফিসার মাহমুদ হোসেন বলেন, এ ক্লাউড স্টোর আমাদের বিজনেস টু বিজনেস (বিটুবি) গ্রাহকদের সহ-সম্পর্কের মাধ্যমে আরও উন্নত সেবা দেওয়ার একটি সুযোগ। ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্যে পৌঁছাতে নানা ধরনের উদ্ভাবনের যাত্রায় স্টোরটি প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও সমৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

বেসিসের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ফাইন্যান্স) মুশফিকুর রহমান বলেন, বিশ্বব্যাপী ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রযুক্তিগত বিপ্লবে সহায়তা করছে ক্লাউড কম্পিউটিং। ইন্টারনেট সংযোগ ও ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এখন সহজে সফটওয়্যার ও পরিসেবাগুলোয় ডেটা ব্যাকআপ থেকে শুরু করে গ্রাহক সম্পর্ক ব্যবস্থাপনায় আরও বেশি দক্ষতা অর্জন করতে পারবে।

এ ক্লাউড স্টোর অভিজ্ঞ আইটি বিশেষজ্ঞরা পরিচালনা করবে, যাতে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে তা দ্রুত সমাধান করা যায়। কেউ কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে সমাধানের জন্য প্রতিষ্ঠানটি দিনরাত ২৪ ঘণ্টা সেবা দেবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..