দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

গ্রামীণ সড়ক ভারী যান চলাচলের উপযোগী করতে হবে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: গ্রামাঞ্চলের সড়ক দিয়ে এখন ভারী যানবাহন চলাচল করে। বিশেষ করে গাছের গুঁড়ির মতো ভারী বস্তু বহনকারী ট্রাক চলাচলের সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু বিদ্যমান গ্রামীণ সড়কগুলো এমন ভারী যান চলাচলের উপযোগী নয়। এমন পরিস্থিতিতে বেশি এক্সেল লোড বহনে সক্ষম গ্রামীণ সড়ক নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরগুলোয় যাতে রাতে উড়োজাহাজ ওঠানামা করতে পারে, সে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থাকরণে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে গতকাল তিনি এ নির্দেশ দেন বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। এ সময় পরিকল্পনা সচিব মো. আসাদুল ইসলাম গণভবনে উপস্থিত ছিলেন। একনেকের বাকি সদস্যরা ছিলেন এনইসি সম্মেলন কক্ষে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান অসুস্থ থাকায় গতকাল একনেক সভা-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে বিস্তারিত তুলে ধরেন পরিকল্পনা সচিব। এ সময় প্রধানমন্ত্রী অনুশাসনের বিষয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার অনেক বছর ক্ষমতায় আছে। ক্ষমতায় থাকাবস্থায় অনেক রাস্তা তৈরি করে ফেলেছি। ফলে রাস্তা বানানোর জন্য যে বরাদ্দ, সেটার যেন যথাযথ ব্যবহার হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য পরিবীক্ষণ বাড়াতে হবে। আর গ্রামের রাস্তায় ভারী যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে। উন্নয়ন কার্যক্রম হচ্ছে, গ্রাম ও শহরের পার্থক্য কমাতে হবে। আর গ্রামেও এখন ভারী যানবাহন চলাচল করে। ফলে গ্রামীণ সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে এগুলোর সক্ষমতার বিষয়টি বিবেচনায় রাখতে হবে। যাতে সেগুলো দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল করতে পারে।’

গতকাল একনেক সভায় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ‘যশোর বিমানবন্দর, সৈয়দপুর বিমানবন্দর ও শাহ মখদুম বিমানবন্দর, রাজশাহীর রানওয়ে সারফেসে অ্যাসফল্ট কংক্রিট ওভারলেকরণ’ শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন পায়।

এ প্রকল্পটির বিষয়ে আসাদুল ইসলাম বলেন, ‘রানওয়ের উন্নয়নের প্রকল্পের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এসব বিমানবন্দরের ব্যবহার যেহেতু বাড়ছে এবং রাতে যাতে উড়োজাহাজ ওঠানামা যাতে করতে পারে, সে জন্য পর্যাপ্ত লাইটিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।’ এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয় অনুশাসন ছিল, বিমানবন্দরগুলোর ব্যবহার যেহেতু বৃদ্ধি পাচ্ছে, অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে, অন্যান্য কার্যক্রম হচ্ছে; সেহেতু বিমানবন্দরগুলোর যথাযথ উন্নয়ন ও সংস্কার প্রয়োজন।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কদমরসুল অঞ্চলে কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়ন’ প্রকল্প অনুমোদনের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য তুলে ধরে সচিব বলেন, ‘বর্জ্য ব্যবস্থাপনার প্রকল্পের বিষয়ে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য যে ভাগাড় করা হবে, সেটা যেন আশপাশের সুপেয় পানিকে দূষিত না করে, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। তাই ভাগাড়গুলো যেন জলাশয়ের পাশে স্থাপন না করা হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..