প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ঘানায় বিস্ফোরণে ৫০০ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত, বহু নিহত

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ঘানার পশ্চিমাঞ্চলীয় স্বর্ণখনি এলাকায় বিশাল এক বিস্ফোরণে কয়েকশ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে বহু বাসিন্দা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও শতাধিক মানুষ। বিস্ফোরণে পুরো শহর প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। প্রাথমিকভাবে ১৭ জনের মৃহদেহ উদ্ধার করেছেন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। নিহত মানুষের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে উদ্ধার অভিযান শুরু করেছেন সেনাসদস্যরা। খবর: সিএনএন, রয়টার্স, বিবিসি।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকালে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় গ্রামীণ এলাকায় একটি স্বর্ণখনির বিস্ফোরকবাহী ট্রাকের সঙ্গে একটি মোটরসাইকেলের সংঘর্ষের পর বিস্ফোরণের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন তাদের প্রতি শোক জানিয়ে গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

স্থানীয় গণমাধ্যমে পোস্ট করা ভিডিওগুলোয় বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত একটি বিশাল ও ধূমায়িত এলাকা দেখা গেছে। সেখানে ইট, কাঠ ও দুমড়ে যাওয়া রডের স্তূপে পরিণত হয়েছে ভবনগুলো।

একটি ভিডিওতে মাটিতে পড়ে থাকা ছিন্নভিন্ন দুটি মৃতদেহ দেখা গেছে। সেগুলো ধূলায় ঢাকা ছিল। স্থানীয় কাউন্সিলের এক সদস্যের শেয়ার করা একটি ছবিতে বিস্ফোরণস্থলে গভীর একটি গর্ত দেখা গেছে। এর কিনারে দাঁড়িয়ে লোকজন ভেতরে উঁকি দিচ্ছে।

ঘানার জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার উপ-মহাপরিচালক সেজি সাজি আমেদোনু জানিয়েছেন, প্রায় ৫০০ ভবন ধ্বংস হয়ে গেছে। জরুরি বিভাগের আঞ্চলিক এক কর্মকর্তা স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেছেন, তিনি ১০টি মৃতদেহ দেখেছেন।    

গতকাল এক বিবৃতিতে দেশটির পুলিশ বলেছে, উদ্ধারকাজ শুরু করা হচ্ছে, তাই লোকজনকে তাদের নিরাপত্তার জন্য এলাকাটি ছেড়ে নিকটবর্তী শহরে চলে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, এলাকাটির জীবিত বাসিন্দাদের আশ্রয় দিতে নিকটবর্তী শহরগুলোর স্কুল, গির্জাসহ জনসাধারণের ব্যবহƒত স্থাপনাগুলো খুলে দিতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ঘানার পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ এপিয়াতের দুই শহর বোগোসো ও বাউদি। এ দুটি শহরের অদূরেই শিরানো এলাকায় একটি স্বর্ণখনি রয়েছে, যেটির সার্বিক পরিচালনার দায়িত্বে আছে কানাডাভিত্তিক কোম্পানি কিনরোস গোল্ড করপোরেশন। ওই স্বর্ণখনিকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে বোগোসা ও বাউদি।

জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার উপ-মহাপরিচালক সেজি সাজি আমেদনু বলেন, বৃহস্পতিবার ওই স্বর্ণখনির জন্য বিস্ফোরক নিয়ে যাচ্ছিল একটি ট্রাক। ট্রাকটি দুই শহরের মাঝামাঝি স্থানে পৌঁছানোর পর বিপরীত দিকে থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় সেটির, যার ফলে ঘটে বিস্ফোরণ। এতে তাৎক্ষণিকভাবে ১৭ জন নিহত হন।

বহুসংখ্যক মানুষ হতাহত হওয়া ছাড়াও বিস্ফোরণের ফলে ঘটনাস্থলের আশপাশের অন্তত ৫০০ ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন আমেদনু। এছাড়া আহতদের রাজধানী আক্রার কয়েকটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছেন তিনি।

ঘানার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মুখপাত্ররা জানান, ঘটনা তদন্তে ঘানার পুলিশ ও কিনরোস গোল্ড করপোরেশন দুটি কমিটি গঠন করেছে। এছাড়া খনি কর্তৃপক্ষের কোনো অসতর্কতা বা ভুল এ বিস্ফোরণের জন্য দায়ী কি না, তা খতিয়ে দেখতে পৃথক একটি কমিটি গঠন করেছে দেশটির ভূমি ও প্রাকৃতিক সম্পদ-বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

স্থানীয় পুলিশ বলছে, দুর্ঘটনাকবলিত অঞ্চলে অন্তত ১০ হাজার মানুষ বসবাস করছেন। তাদের বেশিরভাগ কৃষক ও খনি শ্রমিক।

ঘানার প্রেসিডেন্ট নানা আকুফো-আদ্দো এক টুইটে জানিয়েছেন, ঘটনাটির বিষয়ে তাকে অবহিত করা হয়েছে এবং সেখানে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। নিহত ব্যক্তিদের জন্য শোক প্রকাশ করে তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি।

ঘানায় সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বেশ কয়েকটি গ্যাস বিস্ফোরণ ঘটে। ২০১৫ সালে দেশটির রাজধানী আক্রাতে ভয়াবহ গ্যাস বিস্ফোরণে ১৫০ জন নিহত হয়েছেন। গত অক্টোবরে আক্রায় গ্যাস বিস্ফোরণে একজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া একই মাসে দেশটির অন্য একটি অঞ্চলে দাবানলে তিনজন নিহত হয়েছেন।