পত্রিকা সারা বাংলা

ঘোড়াশাল সার কারখানায় গ্যাসের পাইপলাইনে অগ্নিকাণ্ড

প্রতিনিধি, নরসিংদী: নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া সার কারখানার নির্মিতব্য প্রকল্পের গ্যাস সঞ্চালন লাইনে অগিকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। নির্মাণকাজের জন্য পাইলিং করার সময় তিতাস গ্যাসের পাইপলাইন ফুটো হয়ে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত। গতকাল দুপুরে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘোড়াশাল, পলাশ ও নরসিংদী ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা করে। তবে এ ঘটনায় একটি পাইলিং মেশিন পুড়ে যাওয়া ছাড়া কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

স্থানীয়রা জানান, গতকাল পৌনে ১২টার দিকে কারখানার নতুন প্রকল্পের জন্য আশরাফ
ট্রেডার্সের লোকজন পাইলিং করার সময় কারখানার গ্যাসের সঞ্চালন লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় আগুন ধরে গেলে লেলিহাল শিখা প্রায় ৪০/৫০ ফুট উপরে উঠে যায়। এতে আশেপাশের আবাসিক এলাকার মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এবং বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। এছাড়া আবাসিক এলাকার থেকে আগুন লাগার স্থান ফাঁকা থাকায় তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তবে আবাসিক এলাকাসহ সব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।

এ বিষয়ে পলাশ সার কারখানার মহাব্যবস্থাপক (জিএম প্রশাসন) মো. আশরাফুল ইসলাম জানান, এ প্রকল্পের অনেকেই আজ (গতকাল) ঢাকায় রয়েছেন। ঘটনার খবর শুনে তারা কারখানায় পৌঁছেছেন। প্রকেল্প চীনা কোম্পানি কাজ করছে।

ঘোড়াশাল সারকারখানার শ্রমিক ইউনিয়নের (সিবিএ) সভাপতি মো. আমিনুল ইসলাম ভঁ‚ইয়া জানিয়েছেন, প্রকল্পের কাজ শুরু থেকে এ রকম আরও কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। যেমন এর আগে পানির লাইন, বিদ্যুতের লাইনসহ আবাসিক এলাকার লাইনগুলোও তুলে ফেলেছে। ফলে এখানে বসবাসকারী লোকজনের অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। তিনি আরও জানান, প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে রাজিউর রহমান মল্লিককে। তিনি একজন কেমিস্ট।

কিন্তু এ প্রকল্পের জন্য দেয়ার প্রয়োজন ছিল একজন প্রকৌশলী। এছাড়া প্রকল্পের কাজ চলাকালীন প্রকল্প কমিটির বা কারখানার কোনো লোকজন উপস্থিত না থাকায় চীনা কর্মীরা তাদের মতো করে কাজ করে যাচ্ছে। ফলে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে। আজকেও (গতকাল) ঘটনার সময় কারখানা বা প্রকল্প কমিটির কোনো সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। এখানে লক্ষণীয় বিষয় হলোÑচীনা কর্মীরা তো যানে না কোথায় কি আছে বা কীভাবে আছে; তাই কারখানা বা প্রকল্প কমিটির সদস্যরা উপস্থিত থেকে তাদের দেখিয়ে দিলে এমন ঘটনার সূত্রপাত নাও হতে পারতো।

নরসিংদীর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক মো. নুরুল ইসলাম জানান, দুপুর ১২টায় পলাশ ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে এখানে আগুন লাগার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছি। এখানে এসে জানতে পারি কারখানা অভ্যন্তরে প্রতিষ্ঠানটির নির্মাণাধীন ভবনের পাইলিংয়ের কাজ করছিলেন শ্রমিকরা। কাজ করতে গিয়ে কারখানার সঞ্চালন লাইনে আঘাত পড়লে সঙ্গে সঙ্গে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়।

এ সময় আশরাফ ট্রেড প্রতিষ্ঠানের একটি পাইলিং মেশিন পুড়ে যাওয়া ছাড়া অন্য কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তিতাস গ্যাস কোম্পানির লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে, বাল্ব স্টেশন থেকে সংযোগ বন্ধের মাধ্যমে অচিরেই আগুন নেভানো হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..