সারা বাংলা

চট্টগ্রামের সুনাম ও খ্যাতি সমুন্নত রাখছে ওয়েল

ওয়েল পার্ক রেসিডেন্সের ১০ম বর্ষপূর্তি

প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম মহানগরীর জিইসি মোড়ের অভিজাত হোটেল ওয়েল পার্ক রেসিডেন্স রোববার ১০ বছরপূর্তি উদ্যাপন করে। নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালন করা হয় বর্ষপূর্তি। খতমে কোরআন ও কেক কেটে বর্ষপূর্তির সূচনা করেন ওয়েল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম কমু ও পরিচালক সৈয়দ আসিফ হাসান।

বর্ষপূর্তি উপলক্ষে হোটেলের কনফারেন্স হলে আয়োজিত আলোচনা সভায় সিরাজুল ইসলাম কমু বলেন, একটি সমম্বিত পরিকল্পনা নিয়ে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে ওয়েল গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ। বাংলাদেশের অর্থনীতির স্বর্ণ দুয়ার চট্টগ্রামকে নিয়ে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারী ও পর্যটকদের আগ্রহ বরাবরই ছিল। কিন্তু আন্তর্জাতিক মানসম্মত খাবার ও রাত্রিযাপনের ক্ষেত্রে নানা অসুবিধা পর্যটকদের কিছুটা হতাশ করত। এ সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসে ওয়েল গ্রুপ।

ওয়েল গ্রুপ মূলত দেশের বস্ত্র খাতে বিনিয়োগ করে ব্যবসা শুরু করে। দেশীয় স্পিনিং, টেক্সটাইল ও তৈরি পোশাক শিল্পের উন্নয়নে বেশ ভূমিকা রাখে গ্রুপটি। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বেকারি খাদ্য পণ্য ও আবাসন খাতের উন্নয়নে হাত দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালের ৭ মার্চ আনুষ্ঠানিক যাত্রা করে ওয়েল পার্ক রেসিডেন্স।

যাত্রার শুরু থেকেই ওয়েল পার্ক দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ করতে সমর্থ হয়। ওয়েল পার্ক সুনামের সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনার পাশাপাশি চট্টগ্রামের ইতিহাস ঐতিহ্য ও কৃষ্টিকে পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে কাজ করছে। চট্টগ্রামের সুনাম সুখ্যাতিকে সমুন্নত রাখতে ওয়েল পার্ক সচেতনভাবে কাজ করছে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, এক দশকের পথ চলায় নানা মহলের সহযোগিতা ও পরামর্শ আমরা পেয়েছি। সব শুভানুধ্যায়ীদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা। ওয়েল পার্কের গৌরবময় পথচলায় কর্মচারী-কর্মকর্তাদের নিষ্ঠতা, শ্রম ও আন্তরিকতা উল্লেখ করে তিনি।

ওয়েল পার্কের জেনারেল ম্যানেজার এমএ মনছুরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য দেন ওয়েল গ্রুপের পরিচালক সৈয়দ আসিফ হাসান, নির্বাহী পরিচালক মঞ্জুরুল আহসান চৌধুরী, আলী নওশাদ পারভেজ, রানা মজুমদার, মামুন আল রশীদ, রেজুয়ানুল ইসলাম, বিশ্বনাথ দাশ, আব্দুল মাবুদ, আবু কাইয়ুম, মমতাজ আকতার প্রমুখ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..