দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

চট্টগ্রাম-ঢাকা এসি বাসের কাছাকাছি বিমান ভাড়া!

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম থেকে সড়কপথে ঢাকা যেতে বাসে লাগছে পাঁচ-ছয় ঘণ্টা। আর ৬০ শতাংশ হারে বাড়ানো হয়েছে বাসের আসনপ্রতি ভাড়া। এতে একটি এসি বাসে প্রায় এক হাজার ৬০০ টাকা করে ব্যয় হচ্ছে যাত্রীদের। অথচ আকাশপথে বিমানে এবার এক হাজার ৯৯৯ টাকায় চট্টগ্রাম-ঢাকা বিমানভ্রমণের সুযোগ দিয়েছে বেসরকারি খাতের বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস।

গতকাল করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দুই মাসের বেশি সময় পর নতুন করে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চালুর হওয়ার প্রথম দিনে ছিল এমন চমক।

শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ২৮ যাত্রী নিয়ে বেসরকারি অ্যাভিয়েশন কোম্পানি ইউএস বাংলার ফ্লাইট অবতরণ করে। এর মধ্যে দিয়ে প্রায় দুই মাস বন্ধ থাকা অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট আবার চালু হয়। এরপর ১৫ মিনিট পর ৩৭ যাত্রী নিয়ে আবার ঢাকার উদ্দেশে উড়াল দেয় ফ্লাইটটি। সকাল ৮টায় অবতরণ করে বেসরকারি নভোএয়ারের একটি ফ্লাইট।

এভাবে গতকাল বিকাল পর্যন্ত সাতটি ফ্লাইট চালু ছিল। যদিও পরে ইউ-বাংলার দুটি ফ্লাইট বাতিল হয়। আর আগে ঘোষণা থাকলেও পরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুটি ফ্লাইট স্থগিত রাখা হয়েছে। বন্দরের কর্মকর্তারা জানান, স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে রয়েছে কঠোর নজরদারি। যাত্রীসহ বিমানবন্দরে দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম শেয়ার বিজকে বলেন, সোমবার চট্টগ্রাম টু ঢাকা এবং ঢাকা টু চট্টগ্রাম আমাদের মোট চারটি ফ্লাইট অপারেট করা হয়েছে, যদিও ছয়টির শিডিউল ছিল। আর করোনাকালে যাত্রীর কথা চিন্তা করে আমরা সর্বনিম্ন ভাড়া রেখেছি এক হাজার ৯৯৯ টাকা। সুরক্ষার বিষয়ে তিনি বলেন, নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বিমানবন্দরের এন্ট্রি পয়েন্ট থেকে শুরু করে ফ্লাইটের ভেতর পর্যন্ত জিরো টলারেন্স নীতিতে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে। একইভাবে বিমানবন্দরে ফ্লাইট অবতরণের পর আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী সবকিছু জীবাণুমুক্ত করে সিভিল অ্যাভিয়েশন অথরিটির সার্টিফিকেট নিয়েই ফিরতি ফ্লাইট উড্ডয়ন করছে। আর যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতার ৭৫ শতাংশ যাত্রী নেওয়া হয়। এক ব্যক্তি হলে এক আসন পরপর বসানো হয়েছে। অপরদিকে পরিবার হলে একসঙ্গে আসন দেওয়া হয়।

অপরদিকে নভোএয়ারের কর্মকর্তারা জানান, বিমানভাড়া বাড়ানো হয়নি। আগের মতো ঢাকা-চট্টগ্রাম ওয়ানওয়ে দুই হাজার ৫০০ টাকা।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী বিভিন্ন বাসে (যেমন: গ্রীনলাইন, দেশ ট্রাভেল ও সিল্কলাইন) ভাড়া নেওয়া হচ্ছে আসনপ্রতি এক হাজার ৬০০ টাকা। চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী যাত্রীরা বলেন, ‘জীবন ও জীবিকার এ সংকটকালীন মূহূর্তে বাসভাড়া বাড়ানো অমানবিক। উপায় না দেখে জীবিকার জন্য ঢাকায় চলে যেতে হচ্ছে এক হাজার ২০০ টাকার ভাড়া এক হাজার ৬০০ টাকা দিয়ে। তবুও আতঙ্কে আছি।’

শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার সারওয়ার-ই-জামান শেয়ার বিজকে বলেন, করোনা প্রতিরোধে দীর্ঘ দুই মাসের বেশি সময় পর সোমবার থেকে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চালু হয়েছে। ৯টি ফ্লাইট আসার শিডিউল ছিল। এর মধ্যে ইউএস-বাংলার ছয়টি এবং নভোএয়ারের তিনটি ফ্লাইটের শিডিউল রয়েছে। তবে বাংলাদেশ বিমান ও রিজেন্টের ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ ছিল।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে শাহ আমানত বিমানবন্দর দিয়ে চারটি দেশীয় এবং তিনটি বিদেশি উড়োজাহাজ পরিচালনাকারী সংস্থার মাধ্যমে অভ্যন্তীণসহ ৯টি আন্তর্জাতিক রুটে ১৭ লাখ ৭৮ হাজার যাত্রী যাতায়াত করেন। একই সময়ে দুই হাজার ৬৯৩ টন কার্গো রফতানি ও ছয় হাজার ৮৮১ টন কার্গো আমদানি হয়েছিল।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..