প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

চরিত্রে ‘দাগ’ থাকলে নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক: কারও বিরুদ্ধে যদি কোনো ধরনের অভিযোগ থাকে, তাকে বিবেচনা করার দরকার নেই। চরিত্রে দাগ থাকলে তাকে নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ দেয়া যাবে না। দেশে লোকের অভাব নেই। গতকাল বুধবার সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. এটিএম শামসুল হুদা এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সরকার নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনের জন্য যে আইনটি করতে যাচ্ছে, এটি নিয়ে সংসদে আরও আলোচনার দরকার ছিল। এটা আরও স্বচ্ছ, সুন্দর করা উচিত।

আইনে যে সার্চ কমিটি আছে, এতে সাবেক সিইসিকে রাখার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন শামসুল হুদা। কেননা, পাঁচ বছর কাজ করে সাবেক সিইসির একটি অভিজ্ঞতা অর্জন হয়। এছাড়াও মহা হিসাব নিয়ন্ত্রকসহ আমলাদের রাখার কথাও বলেন তিনি।

শামসুল হুদা বলেন, রাজনৈতিক প্রতিনিধিদের রাখা হলে তারা কীভাবে দল-মত ঊর্ধ্বে ওঠে কাজ করবে? ওখানে কোনো মহাপুরুষ খুঁজে পাবেন না।

তিনি বলেন, একটা আইন হচ্ছে এটা নিয়ে এত অবিশ্বাস থাকলে মুশকিল। আইন হচ্ছে, ভালো হবেÑএই বিশ্বাস রাখতে হবে। দেশে কোনো আইন না থাকার পরও অতীতে ভালো কমিশন হয়েছে। আবু সাঈদ, আবু হেনা কমিশন ভালো করেছে। যদিও মাঝে একটু সমস্যা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কমিশন সবদিক থেকে সহায়তা না পেলে সম্ভব নয়। কাজেই কোনো আইন না থাকার পরও তারা ভালো করেছে।

শামসুল হুদা আরও বলেন, সার্চ কমিটির সুপারিশ করা নামগুলো প্রকাশ করা উচিত। এতে মানুষের মতামত পাওয়া যাবে। কিন্তু প্রস্তাবিত আইনে সেটি নেই। নাম প্রকাশ করলে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ আসবে তাকে বিবেচনার দরকার নেই। দেশে লোকের অভাব নেই। অনেক ভালো লোক আছে। চরিত্রে কোনো ধরনের দাগ থাকলে কারও নাম আসতে পারবে না।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ড. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সার্চ কমিটি বা ইসি নিয়োগ রাজনৈতিক সম্পৃক্ততার মাধ্যমে হওয়া উচিত। অন্যথায় যে কমিশন গঠন করা হবে তা হবে বিতর্কিত। ড. শামসুল হুদা কমিশনের পর যে কমিশন গঠন হয়েছে, সবগুলো বিতর্কিত হয়েছে। ভবিষ্যতেও বিতর্কিত হবে।

তিনি বিভিন্ন দেশের উদাহরণ টেনে বলেন, নেপাল, ভুটান, পাকিস্তানের আইনে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা রাখা হয়েছে। উন্নত রাষ্ট্রগুলোতেও রাখা হয়েছে। ভারতেও এমন আইন করার আলোচনা চলছে। সার্চ কমিটি যে নামগুলো সুপারিশ করবে তা প্রকাশ করে মতামত নেয়ার পক্ষে মতামত দেন ড. সাখাওয়াত হোসেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল বলেন, ইসি গঠনের জন্য প্রস্তাবিত আইনটি সরকারের ইচ্ছা পূরণের আইন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া যেভাবেই ইসি গঠন হোক না কেন নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। কেননা, গত ১৩-১৪ বছরে সব পর্যায়ে যে দলীয় কাঠামো গড়ে তুলেছে এতে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ইসি নিয়োগে রাষ্ট্রপতির প্রজ্ঞাপনকে আইনি মোড়কে উপস্থাপন করা হয়েছে। এতে আলাদা কিছু নেই। এটা কোনোভাবেই অনুসন্ধান নয়। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় নির্বাচন কমিশনার

হওয়ার যে যোগ্যতা-অযোগ্যতার কথা বলা হয়েছে, এমন লোক হাজার হাজার আছে।

 ‘প্রস্তাবিত নির্বাচন কমিশন নিয়োগ আইন, জনআকাক্সক্ষা ও করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভাটি আয়োজন করে সুজন। অধ্যাপক রওনক জাহানের সঞ্চালনায় এতে অন্যদের মধ্যে সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক দিলীপ কুমার সরকার, নির্বাচন পর্যবেক্ষক ড. আলিম প্রমুখ অংশ নিয়েছিলেন।