স্পোর্টস

চলে গেলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তী স্যার এভারটন উইকস

ক্রীড়া ডেস্ক: চলে গেলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তী ব্যাটসম্যান স্যার এভারটন উইকস।বুধবার বার্বাডোজে নিজ বাড়িতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন ক্যারিবীয় এই কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।

১৯৪৮ থেকে ১৯৫৮ সালের মাঝে ৪৮ টেস্ট খেলছিলেন তিনি, ৫৮.৬১-এর অসাধারণ গড়ে করেছিলেন ৪৪৫৫ রান। ১৯৪৮ সালে ভারত ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষকে টানা ৫ ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছিলেন উইকস, যে রেকর্ড টিকে আছে এখনও।

স্যার ক্লাইড ওয়ালকট ও স্যার ফ্র্যাঙ্ক ওরেলের সঙ্গে এক ভয়ঙ্কর ‘ব্যাটিং-ত্রয়ী’ গড়েছিলেন উইকস, যাদেরকে ডাকা হতো ‘থ্রি ডব্লিউস’ হিসেবে। ১৮ মাসের ব্যবধানে জন্ম তিনজনের, কথিত আছে একই আয়ার মাধ্যমে জন্ম হয়েছিল তাদের। তিনজনের টেস্ট অভিষেক হয়েছিল তিন সপ্তাহের ব্যবধানে।

এ তিনজনের মাঝে সবচেয়ে বেশি ব্যাটিং গড় ছিল উইকসেরই, ওয়ালকটের ছিল ৫৬.৬৮, ওরেলের ছিল ৪৯.৪৮। ওরেল ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ অধিনায়ক, ওয়ালকট ছিলেন আইসিসির প্রথম ‘সাদা’ ছাড়া অন্য গাত্রবর্ণের চেয়ারম্যান। উইকস পরে দায়িত্ব পালন করেছেন আইসিসির ম্যাচ রেফারি হিসেবে।

অভিষেকের বছরই টানা পাঁচ সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন উইকস। ১২ ইনিংসে ১০০০ টেস্ট রান ছুঁয়েছিলেন, স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের চেয়েও এক ইনিংস কম সময় লেগেছিল তার। টানা ৫ সেঞ্চুরির মতো হারবার্ট সাটক্লিফের সঙ্গে যৌথভাবে দ্রুততম সময়ে এক হাজার রানের রেকর্ডটিও টিকে আছে এখনও।

সবচেয়ে বেশী বয়সী জীবিত ক্রিকেটারদের একজন ছিলেন উইকস, তিনি চলে যাওয়াতে এখন থাকলেন দক্ষিণ আফ্রিকার জন ওয়াটকিনস ও ইংল্যান্ডের ডম স্মিথ– দুজনেরই বয়স এখন ৯৭।

২০১৯ সালে হার্ট-অ্যাটাক হয়েছিল উইকসের, এরপর নিতে হয়েছিল আইসিইউতে।

উইকসের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে ক্রিকেট উইন্ডিজ বলেছে, “আজ এক আইকনের মৃত্যুতে আমাদের হৃদয় ভারাক্রান্ত। একজন কিংবদন্তী, আমাদের নায়ক, স্যার এভারটন উইকস। তার পরিবার, বন্ধু এবং বিশ্বজুড়ে থাকা অসংখ্য সমর্থকদের প্রতি আমাদের সমবেদনা।”

উইকসের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছে এমসিসি, আইসিসিও।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..