প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

চার স্পিনারেই আস্থা কোচের

ক্রীড়া প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম টেস্টে চার স্পিনার খেলানোর সাহস নিয়েছিল বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত সেই কৌশলই কাজে লাগে টাইগারদের। দুদিন হাতে রেখেই স্বাগতিকরা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় ছিনিয়ে নেয়। স্বাভাবিকভাবে দারুণ খুশি লাল-সবুজদের কোচ স্টিভ রোডস। তাই ঢাকা টেস্টেও চার স্পিনারের উপরই আস্থা রাখছেন তিনি। লক্ষ্য একটাই। সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশের লজ্জা দেওয়া।
পেসার হিসেবে চট্টগ্রাম টেস্টে ছিলেন শুধু মোস্তাফিজুর রহমান। কিন্তু স্পিনারদের জ্বলে ওঠার কারণে এ বাঁহাতি আক্রমণে আসার সুযোগ পেয়েছিলেন খুব কমই।
দুই ইনিংসেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের সব উইকেট নেন বাংলাদেশের স্পিনাররা। অভিষেকে টেস্টে প্রথম ইনিংসেই ৫ উইকেট তুলে নেন নাঈম। এদিকে দ্বিতীয় ইনিংসে সফরকারীদের সামনে বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়ান তাইজুল ইসলাম। এ বাঁহাতি নেন ৬টি উইকেট। এদিকে চোটমুক্ত হয়ে ফেরা সাকিব আল হাসান ছিলেন উজ্জ্বল। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টেস্টে তিনি দখল করেন ২০০ উইকেট। মেহেদি হাসান মিরাজও সময়মতো নিজের ঝলক দেখান। ঢাকা টেস্ট জিততে তাই স্পিনারদের নিয়ে রণনীতি সাজানোর পরিকল্পনা বাংলাদেশের কোচের।
এদিকে স্পিনিং কন্ডিশনে চার স্পিনার খেলিয়ে সাফল্য পাওয়া নিয়ে তির্যক মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। তাতে অবশ্য কান দিচ্ছেন না স্টিভ রোডস। সত্তর-আশি দশকের ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘ইতিহাস বলে টেস্টে বেশিরভাগ সময় দুই স্পিনার, তিন পেসার আর এক অলরাউন্ডার নিয়ে খেলা হয়ে আসছে। কিন্তু যখন ওয়েস্ট ইন্ডিজ চার পেসার এবং কোনো স্পিনার ছাড়া নামত সেটা ছিল তাদের কৌশল। যদি আমরা মনে করি চার স্পিনারই ঠিক আছে, এটাই আমাদের কৌশল তাহলে সেটাই আমাদের অনুসরণ করা উচিত।’
স্পিনারদের জ্বলে ওঠা দেখে ঢাকা টেস্ট জেতার আশা আরও বেড়েছে স্টিভ রোডসের। তাই তার চাওয়া সিরিজটি ২-০ ব্যবধানে জিতুক শিষ্যরা, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয়টা সত্যিই দারুণ ছিল। ক্রিকেটারদের মতোই তাদের জন্য আমার অনেক সমীহ আছে। তারা পরের টেস্টে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া থাকবে। আমাদের এ জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। আমি চাই ২-০ তে জিততে।’
শুক্রবার সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে মিরপুর
শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ম্যাচটি শুরু হবে সকাল সাড়ে ৯টায়। এর আগে দুই দলের প্রথম লড়াইয়ে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ জিতেছিল ৬৪ রানে।