খবর দিনের খবর

চার হাজার করে ডাক্তার ও নার্স নিয়োগ দেয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: কভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলায় দেশে আরও চার হাজার চিকিৎসক ও সমান সংখ্যক নার্স নিয়োগ দেয়ার কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। গতকাল মন্ত্রিপরিষদ বৈঠক শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেড় বছর ধরে চিকিৎসক ও নার্সরা কভিডে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে ক্লান্ত হয়ে গেছেন। এজন্য নতুন জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। চিকিৎসক ও নার্স নিয়োগের এ প্রক্রিয়া শিগগির শেষ করা হবে।

এ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ‘মৌখিক পরীক্ষা’ বাদ দেয়ার জন্য বলা হয়েছে বলে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অনুরোধ করেছি ইন্টারভিউয়ের দরকার নেই, পুলিশ ভ্যারিফিকেশনের দরকার নেই। তাড়াতাড়ি তাদের কাজে যোগ দেয়ার সুযোগ করে দেয়া হোক।’

এর আগে মহামারিকালে শুধু মৌখিক পরীক্ষার ভিত্তিতে বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারে ৪০৯ জুনিয়র কনসালট্যান্ট (অ্যানেসথেশিওলজি) নিয়োগ দিতে গত জুনে বিজ্ঞপ্তি দেয় বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এছাড়া কভিড-১৯ মোকাবিলায় স্বাস্থ্য ক্যাডারে দুই হাজার সহকারী সার্জন নিয়োগ দিতে গত বছর নভেম্বরে ৪২তম বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল পিএসসি।

পরে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি এতে অংশ নিতে মহামারির মধ্যে প্রথম কোনো বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় বসেছিল ২৭ হাজার ৫৭৩ সরকারি চাকরিপ্রত্যাশী। গত ৬ জুন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছয় হাজার ২২ প্রার্থীর মৌখিক পরীক্ষা নেয়া শুরু হয়। তবে কভিড পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় গত ২২ জুন সেই পরীক্ষা স্থগিত করা হয়।

মন্ত্রিপরিষদ বৈঠক শেষে জাহিদ মালেক আরও জানান, ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে টিকাদান কার্যক্রম আরও জোরদার করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

বয়স্ক মানুষকে টিকার আওতায় আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বয়স্কদের মধ্যে টিকা নিতে অনীহা দেখা গেছে। কিন্তু যারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আসছেন, তাদের বেশিরভাগই বয়স্ক জনগোষ্ঠী। এ কারণে তাদের টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় আনতে হবে। এই কার্যক্রম আমরা হাতে নিয়েছি। এখন আমরা ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে টিকাদান কার্যক্রম আরও জোরদার করব।’

এদিকে দেশে কভিড মহামারির সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে এখন। সংক্রমণের ভয়াবহ এই পরিস্থিতিতে মানুষের চলাচল সীমিত করে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার। লকডাউনে সব ধরনের অফিস-আদালত থেকে শুরু করে শিল্প-কলকারখানাও বন্ধ রয়েছে। এতে অর্থনীতির ক্ষতি হলেও জীবনকে প্রাধান্য দিচ্ছে সরকার। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, জীবন আগে, অর্থনীতি পরে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..