দিনের খবর প্রথম পাতা

চাহিদা বাড়ছে বস্ত্র খাতের শেয়ারের

মুস্তাফিজুর রহমান নাহিদ: ২০১০ সালের পর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত অন্য খাতের কোম্পানি কিছুটা ঘুরে দাঁড়ালেও উল্টো অবস্থানে ছিল ব্যাংক ও বস্ত্র। ধসের পর থেকে ধারাবাহিকভাবে এ দুই খাতের শেয়ারদর কমতে থাকে। বিনিয়োগকারীদের চাহিদা না থাকায় খাত দুটির অনেক কোম্পানির শেয়ার অভিহিত দরের নিচে চলে যায়। তবে সম্প্রতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে খাত দুটি। ব্যাংক কয়েক দিন আগে চালকের আসনে ফিরলেও কিছুটা সময় নিয়েছে বস্ত্র খাত।সম্প্রতি ধীরে ধীরে বিনিয়োগকারীদের পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিচ্ছে এ দুই খাতের কোম্পানি।

বাজার বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, গতকাল সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের কেন্দ্রে ছিল বস্ত্র খাতের শেয়ার। এ কারণে লেনদেনের শুরু থেকে বাড়তে থাকে এসব কোম্পানির শেয়ারদর। এর জের ধরে এ খাতে তালিকাভুক্ত ৫৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্য মাত্র ছয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারদর কমতে দেখা যায়।

বিনিয়োগকারীদের এ খাতের শেয়ারে ঝুঁকে পড়ার প্রধান কারণ এখনও অন্য খাতের থেকে এ খাতের কোম্পানির

 শেয়ারদর কম।এখনও ১০ টাকার কমে পাওয়া যাচ্ছে খাতটিতে তালিকাভুক্ত ১০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার। দর কম থাকার ফলে যারা পুঁজিবাজারে রয়েছে তাদের অনেকে খাতটিতে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছেন। তবে এক্ষেত্রে তাদের কোম্পানির আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় নিতে দেখা যাচ্ছে না। নিয়মানুযায়ী বিনিয়োগকারীদের যা করা উচিত।

এদিকে বিনিয়োগকারীদের চাহিদা থাকার কারণে গতকাল মোট লেনদেনে শক্ত ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয় খাতটি। দিন শেষে মোট লেনদেনে এ খাতের অবদান দেখা যায় ১৫ শতাংশের বেশি। তবে বিমা খাতের সিংহভাগ কোম্পানিতে বিক্রয় চাপ বেশি থাকার কারণে লেনদেনের শীর্ষে চলে যায় খাতটি। দিন শেষে মোট লেনদেনে এ খাতের একক অবদান দেখা যায় ২১ শতাংশ। পরের অবস্থানে ছিল প্রকৌশল খাত। এ খাতটি লেনদেনে ১২ শতাংশের ওপরে অবদান রাখে। এছাড়া গতকালের লেনদেনে বিবিধ, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সন্তোষজন অবদান রাখতে সক্ষম হয়। অন্যদিকে সপ্তাহের শেষ দিনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক বাড়তে দেখা যায় ১১ পয়েন্ট। দিন শেষে সূচকের অবস্থান হয় ছয় হাজার ৬৬ পয়েন্ট। সূচক সামান্য বাড়লেও ডিএসইতে গতকাল বড় ধরনের লেনদেন চোখে পড়ে। দিন শেষে ডিএসইতে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় দুই হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে ব্লক মার্কেটে লেনদেন ছিল ৫৪ কোটি টাকা। এ মার্কেটে গতকাল লেনদেন অংশ নেয় ৪৯টি কোম্পানি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..