প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

চিকিৎসকদের জ্ঞানের ঘর

চিকিৎসাশাস্ত্রের উচ্চ বিদ্যাপীঠ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (পিজি)। ডিপ্লোমা, এমডি, এমএস, এমফিল ও এফসিপিএস শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের চাহিদা পূরণ করছে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। ঘুরে এসে তাদের গ্রন্থাগারসেবা সম্পর্কে জানাচ্ছেন মুতাসিম বিল্লাহ নাসির

শুরুর কথা

চিকিৎসাশাস্ত্রে উচ্চতর গবেষণার জন্য ১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠিত পিজি হাসপাতালকে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করে। শিক্ষার্থীদের তাত্ত্বিক জ্ঞানের চাহিদা মেটাতে ভবনের ‘এ’ ব্লকের পঞ্চম ও ষষ্ঠতলায় গড়ে তোলা হয়েছে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। একসঙ্গে সাত শতাধিক শিক্ষার্থী পড়তে পারেন। এখানে প্রতিদিন গড়ে সহস াধিক চিকিৎসক, সদস্য, শিক্ষক অধ্যয়ন করে এমনটি জানালেন শিক্ষার্থী আরাফাত হোসেন।

 

আসন বিন্যাস

কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের চতুর্থতলার পূর্ব পাশে জেনারেল সেকশন। পশ্চিম পাশে আর্কাইভাল সেকশন। চতুর্থতলায় আছে মুক্তিযোদ্ধা কর্নার। পঞ্চমতলার পূর্ব পাশে আছে প্রফেসর ড. তাইমুর এ কে মাহমুদ ডিজিটাল লাইব্রেরি। পঞ্চমতলার দক্ষিণ পাশে গ্রুপ আলোচনার জন্য আলাদা কক্ষ আছে। পশ্চিম পাশে অডিও ভিজ্যুয়াল ও রেফারেন্স সেকশন।

 

গ্রন্থাগার সামগ্রী

স্বাস্থ্য, গবেষণা, বায়োমেডিক্যাল, হেলথ কেয়ার ডিসিপ্লিন, নার্সিংয়ের ওপর ২৬ হাজার ৫৫১টি ভলিউমের বই আছে। এগুলো ন্যাশনাল মেডিক্যাল ক্লাসিফিকেশন নাম্বার হিসেবে সাজানো আছে।

জার্নাল আছে চার হাজার ৬৩০ ভলিউমের, এর মধ্যে উপহারপ্রাপ্ত দেশি জার্নাল ৫৭টি, বিদেশি আছে ১০৬টি, যা বর্ণক্রমিকভাবে সাজানো।

গ্রন্থাগারে প্রতিবছরই বিপুলসংখ্যক সাময়িকী এবং অন্যান্য প্রকাশনার সৌজন্য কপি দেওয়া হয়, যা সাধারণত বুলেটিন, জার্নাল, রিসার্চ পেপার, রিভিউ, ম্যাগাজিন ধরনের হয়ে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে যোগ হয়েছে ডিজিটাল লাইব্রেরি। যেখানে ১৩টি কম্পিউটারে ব্রাউজ করার সুযোগ রয়েছে। এ ডিজিটাল লাইব্রেরির ওয়েবসাইট ১০ হাজারেরও বেশি ইলেকট্রনিক জার্নাল সাপোর্ট করে। উল্লেখযোগ্য ওয়েবসাইটগুলো হচ্ছে হিনারি, আগোরা ও পেরি। এখানে প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক বুক ডাউনলোডের সুবিধা আছে। এছাড়া এনসাইক্লোপেডিয়া, ডিকশনারি, হ্যান্ডবুক, ওয়ার্ল্ড আলমানাক, ম্যানুয়াল, ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের প্রদেয় সাময়িকী পাওয়া যাবে লাইব্রেরির পঞ্চমতলার পশ্চিম পাশে। ম্যাপ, অ্যাটলাস, সিডি, ডিভিডি, টেপ এবং অডিও ভিজ্যুয়াল সামগ্রী পাওয়া যাবে জার্নাল ও রেফারেন্স সেকশনের পঞ্চমতলায়। কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক হাজার ৫৮৩টি প্রকাশনা আছে।

সমৃদ্ধ ডিজিটাল লাইব্রেরি

প্রফেসর ড. তাইমুর এ কে মাহমুদ ডিজিটাল লাইব্রেরিতে আছে অনলাইন জার্নালের সমৃদ্ধ ভাণ্ডার, যার মধ্যে অন্যতম হিনারি বিশ্বের বৃহৎ বায়োমেডিক্যাল জার্নালের সমষ্টি।

অ্যাকাউস্টিক্যাল সোসাইটি অব আমেরিকা ফিজিক্যাল সায়েন্টিস্ট, লাইফ সায়েন্টিস্ট, ইঞ্জিনিয়ার, সাইকোলজিস্ট, ফিজিওলজিস্ট, আর্কিটেক্ট, মিউজিসিয়ান এবং বক্তৃৃতা, যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ সম্পর্কিত গবেষণালব্ধ উপাদান পাওয়া যাবে এখানে।

আমেরিকান অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি জার্নালটি মূলত জোতির্বিদ্যা-সম্পর্কিত গবেষণা প্রকাশ করে।

আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটিÑপিয়ার রিভিউ জার্নাল পত্রিকা, যা কেমিক্যাল ও রসায়ন সম্পর্কিত গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব ফিজিকস বিজ্ঞানভিত্তিক নেটওয়ার্কিং সাইট, যেখানে ব্যবহারিক বিজ্ঞান-সম্পর্কিত গবেষণা প্রকাশ করে।

আমেরিকান ফিজিক্যাল সোসাইটি বিশ্বের পদার্থবিজ্ঞান-বিষয়ক গবেষণা প্রকাশ করে।

আমেরিকান সোসাইটি অব সিভিল ইঞ্জিনিয়ার সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং-সম্পর্কিত গবেষণা প্রবন্ধ এখানে পাবেন।

আমেরিকান সোসাইটি অব এগ্রিকালচার অ্যান্ড বায়োলজিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার্সের জার্নাল, পাঠ্যবইয়ের উপাদান, মনোগ্রাফস এবং রেফারেন্স ব্যবহার, টপিক ডিজাইন করতে সাহায্য করে।

এছাড়া অ্যানুয়াল রিভিউ, বাংলাজল, বিচ ট্রি পাবলিশিং, ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস অনলাইন জার্নাল, ডি গ্রুইটার ইলেকট্রনিক জার্নাল, এডিনবার্গ ইউনিভার্সিটি প্রেস, জিওলজিক্যাল সোসাইটি, আইইটি ডিজিটাল লাইব্রেরি, ইন্টারন্যাশনাল ফরেস্ট্রি রিভিউ, ইনস্টিটিউট অব ফিজিকস সায়েন্স, ন্যাচার অ্যান্ড প্যালগ্রেভ ম্যাকমিলান জার্নাল, এনআরসি রিসার্চ পেপার, অক্সফোর্ড জার্নাল, পলিসি প্রেস, স্পাই ডিজিটাল লাইব্রেরি, স্প্রিনজার, ইউনিভার্সিটি অব শিকাগো প্রেস থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত ই-পেপার আকারে ডাইনলোড করা যাবে।

খোলা থাকে কখন

সরকার ঘোষিত সাপ্তাহিক ও বার্ষিক ছুটি ছাড়া সাধারণত অন্য সব দিন গ্রন্থাগার খোলা থাকে। শনি থেকে বৃহস্পতিবার প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এখানে পড়তে পারবেন। রেফারেন্স ও জার্নাল সেকশন খোলা থাকে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। প্রফেসর তাইমুর এ কে মাহমুদ ডিজিটাল লাইব্রেরি খোলা থাকে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

 

কীভাবে সদস্য হবেন

বছরে দুবার সদস্য আহ্বান করা হয়। জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর এবং জুলাই থেকে পরবর্তী বছরের জুন পর্যন্ত।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থী, চিকিৎসক, ফ্যাকাল্টি মেম্বার, টিচিং অ্যাসিসট্যান্ট, রিসার্চ অ্যাসিসট্যান্ট সদস্য হতে পারেন। লাইব্রেরি কার্ড পেতে ১০ টাকা দিয়ে আবেদনপত্র কিনে তা পূরণ করে লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিতে হবে। সঙ্গে দিতে হবে স্টাম্প সাইজের দুই কপি ছবি ও আবেদনপত্রে উল্লিখিত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। কর্তৃপক্ষ অনুমোদন দিলে বার্ষিক ১৫০০ টাকা ফি জমা দিয়ে এক বছরের জন্য কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সদস্য হতে পারবেন। ডিজিটাল লাইব্রেরির ক্ষেত্রে এর পরিমাণ দুই হাজার টাকা। অন্যান্য মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা সদস্য হতে পারবেন। প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে পেতে লাইব্রেরি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এলএমএস) ব্যবহার করতে পারেন।

 

যারা পড়তে পারবেন

ফ্যাকাল্টি মেম্বার, মেডিক্যাল অফিসার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবৈতনিক ডাক্তার এবং অন্যান্য মেডিক্যালের শিক্ষার্থী।