সারা বাংলা

চুয়াডাঙ্গায় নতুন শনাক্ত রোগীর বেশিরভাগ সদর ও দামুড়হুদায়

প্রতিনিধি, চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ১৬ গ্রামে ‘লকডাউন’ চলছে। লকডাউনের প্রথম দিন চুয়াডাঙ্গায় সক্রিয় পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ছিল ১৬৩, যা নমুনা পরীক্ষার ২০ দশমিক ৩৭ শতাংশ। বুধবার রাত পর্যন্ত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪১ জনে, যা নমুনা পরীক্ষার শতকরা ৪৬ দশমিক ২৫ শতাংশ।

কভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে পুলিশ ও বিজিবির সঙ্গে কাজ করছেন জনপ্রতিনিধিরা।

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ২ তারিখে সীমান্তঘেঁষা সাতটি গ্রামে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে ৬ জুন নতুন করে আরও ৯টি গ্রাম যোগ হওয়ায় মোট গ্রামের সংখ্যা হলো ১৬।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের কভিড-সংক্রান্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা. আওলিয়ার রহমান জানান, কভিডে আক্রান্ত আরও ৩৭ নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১৭ জন, আলমডাঙ্গায় চারজন, দামুড়হুদায় ১৩ জন ও জীবননগর উপজেলায় তিনজন রয়েছেন। এ হিসাবে সদর ও দামুড়হুদায় বেশি রোগী রয়েছেন।

এ নিয়ে জেলায় দুই হাজার ১৫৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৮৪৩ জন। বর্তমানে আক্রান্ত রয়েছেন ২৪১ জন। তাদের মধ্যে আইসোলেশনে রয়েছেন ২১৫ জন। হাসপাতালে ২৩ জন ও ঢাকায় রেফার্ডে আছেন তিনজন।

এদিকে যেসব বাড়িতে কভিড-আক্রান্ত রোগী রয়েছেন, সেসব বাড়িতে লাল পতাকা লাগিয়ে সতর্ক করার সরকারি নির্দেশনা রয়েছে। এর পরও সব ক্ষেত্রে তা মানা হচ্ছে না। এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার ইন্সপেক্টর বলেছেন, অনেকের বাড়িতে লাল পতাকা লাগাতে গেলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। ফলে ব্যাহত হচ্ছে কার্যক্রম।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..