শেষ পাতা

ছয় মাসে আহরণে এগিয়ে আইসিডি, পিছিয়ে চট্টগ্রাম

কাস্টম হাউসের রাজস্ব পর্যালোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই। আমদানি-রপ্তানিতেও তেমন মন্দা নেই। তবুও বেশিরভাগ কাস্টম হাউস লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারছে না। ছয়টি কাস্টম হাউসের মধ্যে পাঁচটির রাজস্ব ঘাটতি যেন পিছু ছাড়ছে না। অর্থবছরের ছয় মাস শেষ। এর মধ্যে পাঁচটি কাস্টম হাউসের আহরণ আর প্রবৃদ্ধি আশানুরূপ নয়। এর মধ্যে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস প্রবৃদ্ধি ও আহরণ মাইনাসের বৃত্ত থেকে কোনোভাবেই বের হতে পারছে না। আর একমাত্র ব্যতিক্রম আইসিডি কমলাপুর কাস্টম হাউস।

ডিসেম্বরের একক মাস ছাড়াও ছয় মাসে আহরণ ও প্রবৃদ্ধি-দুটোতেই এগিয়ে রয়েছে কমলাপুর কাস্টম হাউস। কাস্টম হাউসের আহরণ আর প্রবৃদ্ধির নিম্নগতির কারণে অর্থবছর শেষে এনবিআরের মোট রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রায় বড় ধরনের প্রভাব পড়তে পারে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।

এনবিআরের হিসেব অনুযায়ী, ছয়টি কাস্টম হাউসে অর্থবছরের ছয় মাস পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪০ হাজার ৪১৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। এর বিপরীতে কম আদায় হয়েছে ১১ হাজার ৮১৯ কোটি ২২ লাখ টাকা। কাস্টম হাউসে রাজস্ব আহরণ কম হওয়ার ক্ষেত্রে প্রথমে ঈদের ছুটি, অতিরিক্ত বৃষ্টিকে দায়ী করা হয়। সরকারের ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পসহ বেশকিছু উন্নয়ন প্রকল্পের পণ্য আসছে। এসব পণ্যে রাজস্ব অব্যাহতি দেওয়া আছে। আমদানি বাড়লেও কাস্টম হাউসগুলো থেকে বারবার বলা হচ্ছে, রাজস্ব অব্যাহতির পণ্য বেশি আসছে। এর ফলে আহরণে প্রভাব পড়ছে। এনবিআর বলছে, উচ্চ শুল্কের পণ্য আমদানি গত অর্থবছরের চেয়ে কোনো অংশে কমেনি। কিন্তু উচ্চ শুল্কের পণ্য না দেখিয়ে শূন্য বা কম শুল্কের এইচএস কোড দেখিয়ে তা খালাস হচ্ছে। গত ছয় মাসে এ-সংক্রান্ত কিছু পণ্য আটক ও মামলা করা হয়েছে।

কাস্টমস হাউসের রাজস্ব পর্যালোচনায় দেখা যায়, ছয়টি কাস্টমস হাউসের মধ্যে ডিসেম্বর পর্যন্ত রাজস্ব আহরণ প্রবৃদ্ধিতে খারাপ অবস্থায় রয়েছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস। ছয় মাসে এ হাউসের আহরণ প্রবৃদ্ধি মাইনাস শূন্য দশমিক ১৪ শতাংশ। আর সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে আইসিডি কমলাপুর। এ হাউসের আহরণ প্রবৃদ্ধি ৩০ দশমিক ২৭ শতাংশ। আর চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের চলতি অর্থবছরের মোট রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ৬৩ হাজার ১৬৮ কোটি দুই লাখ টাকা। এ হাউসের ডিসেম্বরে লক্ষ্যমাত্রা ছিল পাঁচ হাজার ২৪০ কোটি দুই লাখ টাকা। এর বিপরীতে আদায় হয়েছে তিন হাজার ৮৪৬ কোটি ৬৭ লাখ টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এক হাজার ৩৯৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা কম। ডিসেম্বরের রাজস্ব প্রবৃদ্ধি হয়েছে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৪ দশমিক ৪৭ শতাংশ। গত অর্থবছর একই সময় রাজস্ব আদায় হয়েছে তিন হাজার ৩৬০ কোটি ৩৯ লাখ টাকা।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ৩০ হাজার ৪৭৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকার বিপরীতে আদায় কম হয়েছে ৯ হাজার ১৪৯ কোটি ২৯ লাখ টাকা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৩০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা কম। আর ডিসেম্বর পর্যন্ত এ কাস্টম হাউসের রাজস্ব আহরণ প্রবৃদ্ধি মাইনাম শূন্য দশমিক ১৪ শতাংশ।

অপরদিকে, আইসিডি কমলাপুর কাস্টম হাউসের রাজস্ব পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি অর্থবছর এ কাস্টম হাউসের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা তিন হাজার ৩৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। ডিসেম্বরে লক্ষ্যমাত্রা ২০৭ কোটি ২৪ লাখ টাকার বিপরীতে ৪৬ কোটি ৬২ লাখ টাকা বেশি আদায় হয়েছে। আর ডিসেম্বরে এ হাউসের প্রবৃদ্ধি ৩৯ দশমিক ১২ শতাংশ। তবে গত অর্থবছর ডিসেম্বরে রাজস্ব আহরণ হয় ১৮২ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসে এ হাউসের লক্ষ্যমাত্রা এক হাজার ৩২১ কোটি ৭৭ লাখ টাকার বিপরীতে ১৯২ কোটি ৩৬ লাখ টাকা বেশি আদায় হয়েছে। ছয় মাসে আহরণ প্রবৃদ্ধি ৩০ দশমিক ২৭ শতাংশ। ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত এ হাউসের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে এক হাজার ৭০০ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। তবে এ হাউস ২১ জানুয়ারি অর্থাৎ মাস শেষ হওয়ার আট দিন আগে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে তিন কোটি ১৯ লাখ টাকা বেশি আদায় করেছে। এ পর্যন্ত আহরণ প্রবৃদ্ধি ১০০ দশমিক ২০ শতাংশ। তবে অন্য কাস্টম হাউস এ হাউসের প্রবৃদ্ধির ধারে কাছেও নেই।

অন্য কাস্টম হাউসের মধ্যে ঢাকা কাস্টম হাউসের চলতি অর্থবছরের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা পাঁচ হাজার ৪৪১ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। ডিসেম্বরে এ হাউস ৫৬২ কোটি ৪৫ লাখ টাকার বিপরীতে ৩৩০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা কম আদায় করেছে। আহরণ প্রবৃদ্ধি ১১ দশমিক ১৪ শতাংশ। ডিসেম্বর পর্যন্ত এ কাস্টম হাউস দুই হাজার ৫৭৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকার বিপরীতে দুই হাজার ২১৮ কোটি ৪৯ লাখ টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৩৫৭ কোটি চার লাখ টাকা কম। আহরণ প্রবৃদ্ধি ২০ দশমিক শূন্য সাত শতাংশ। আর গত বছর একই সময় পর্যন্ত আদায় হয়েছিল এক হাজার ৮৪৭ কোটি ৬২ লাখ টাকা। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী এ হাউসের আহরণ প্রবৃদ্ধি কিছুটা ঊর্ধ্বগতিতে রয়েছে।

এছাড়া বেনাপোল কাস্টম হাউসের চলতি অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা ছয় হাজার ২৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। ডিসেম্বরে লক্ষ্যমাত্রা ৪৮৫ কোটি ৯ লাখ টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ২৯৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। প্রবৃদ্ধি মাইনাস এক দশমিক ১৫ শতাংশ। ডিসেম্বর পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রা দুই হাজার ৯১২ কোটি ৫১ লাখ টাকার বিপরীতে এক হাজার ৩৬৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা কম আদায় হয়েছে। ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রবৃদ্ধি মাইনাস ২৪ দশমিক ৩০ শতাংশ। মোংলা কাস্টম হাউস ডিসেম্বর মাসে ৩৯৮ কোটি ২৭ লাখ টাকার বিপরীতে ১৫৭ কোটি ৯৪ লাখ টাকার কম আদায় হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৫৬ দশমিক ২২ শতাংশ। ডিসেম্বর পর্যন্ত দুই হাজার ৩৭৬ কোটি ৮৪ লাখ টাকার বিপরীতে কম আদায় হয়েছে ৬১৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা। প্রবৃদ্ধি ১৪ দশমিক ৯৪ শতাংশ। পানগাঁও কাস্টম হাউস ডিসেম্বরে ১৩২ কোটি ৩০ লাখ টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ৮৮ কোটি ৫৮ লাখ টাকা কম আদায় হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ছয় দশমিক ৩০ শতাংশ। ছয় মাসে লক্ষ্যমাত্রা ৭৫৬ কোটি ৬০ লাখ টাকার বিপরীতে ৩৩৫ কোটি চার লাখ টাকা কম আদায় হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৫৪ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..