ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় হোস্টেল ছাড়ছেন আনন্দমোহনের ছাত্রীরা

প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ: কলেজ কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মানতে সকাল থেকেই হোস্টেলগুলো ছাড়া শুরু করেছে ময়মনসিংহের সরকারি আনন্দমোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্রীরা ।

পূর্ব নির্দেশনা অনুযায়ী, রোববার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ৮টার মধ্যে ছাত্রীরা হোস্টেল ছাড়তে বাধ্য হন। এর আগে গতকাল শনিবার রাত ৮টার মধ্যে হোস্টেল ছেড়ে যান কলেজের ছাত্ররাও। ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণদ্বন্দ্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কলেজের সব হোস্টেল বন্ধের নির্দেশ দেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ।

কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আমান উল্লাহ এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, কলেজের সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব হল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই হলগুলো খুলে দেয়া হবে।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি শাহ কামাল আকন্দ বলেন, শনিবার রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ছাত্ররা হল ছেড়েছে। আজ রোববার সকাল ৮টায় হোস্টেলে থাকা ছাত্রীরাও হল ছেড়েছে। বর্তমানে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

প্রসঙ্গগত, শুক্রবার রাতে সরকারি আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগের ইউনিটকে জেলা শাখা ছাত্রলীগের অন্তর্ভুক্ত ইউনিয়ন হিসেবে ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি মহানগর ছাত্রলীগের একাংশ। তারা বলছেন, কলেজের অবস্থান মহানগরের ভেতরে হওয়া সত্ত্বেও কীভাবে তা জেলা ছাত্রলীগের অন্তর্ভুক্ত হয়।

তাই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের দাবিতে শনিবার সকাল থেকেই কলেজ ছাত্রলীগের একটি অংশ ক্যাম্পাসে অবস্থান নেন। কলেজ শাখাটি মহানগর শাখায় অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়ে তারা স্লোগান দিতে থাকেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯৪১৩  জন  

সর্বশেষ..