Print Date & Time : 3 July 2022 Sunday 4:57 pm

ছেলেদের হাতেই ব্যবসার দায়িত্ব দিলেন ট্রাম্প

শেয়ার বিজ ডেস্ক: নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যবসা তার দুই ছেলে ডন ও এরিক চালাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। প্রেসিডেন্ট থাকাকালে তারাই ব্যবসা পরিচালনা করবেন। এ সময়ে ব্যবসা নিয়ে তাদের সঙ্গে আর কোনো আলোচনাও হবে না বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প। বুধবার নিউইয়র্কে সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প এসব কথা জানিয়েছেন। খবর বিবিসি।

সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প আরও বলেন, আমি কিছু কাগজে স্বাক্ষর করে আমার কোম্পানির পরিচালনার দায়িত্ব ছেলেদের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দিয়ে দিয়েছি। এখন থেকে তারা এ ব্যবসা দেখভাল ও পরিচালনা করবে।

এর আগে নীতিবিদ্যা বিশেষজ্ঞরা ট্রাম্পকে তার সম্পত্তি বিক্রির পরামর্শ দিয়েছিলেন। অথবা তার সম্পত্তি কোনো ট্রাস্টের নামে দেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। তাতে প্রেসিডেন্সির সময় সম্ভাব্য সব ধরনের বিতর্ক এড়ানো সম্ভব হবে। তবে ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, তিনি তার কোম্পানি বিক্রি করবেন না। সম্পত্তি বিক্রি না করলেও কোম্পানিতে তার সংশ্লিষ্টতা হ্রাস করার কথা জানান ট্রাম্প।

সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প আরও বলেন, ব্যবসা সংক্রান্ত কোনো বিষয় নিয়ে ডন ও এরিক আমার সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনা করবে না। আমি ব্যবসার বিষয়ে তাদের হস্তক্ষেপ করবো না।

এদিকে ট্রাম্পের আইনজীবী শিরি ডিলন জানিয়েছেন, কোম্পানি এখন থেকে আর কোনো নতুন বিদেশি চুক্তি করবে না। ঝুলে থাকা প্রায় ৩০টি বিদেশি চুক্তি বাতিল করা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ কোনো ব্যবসায়িক চুক্তি করা হলে নতুন কোনো ইথিক অ্যাডভাইজার নিয়োগ করা হবে।

ট্রাম্প ২০১৬ সালের ১২ ডিসেম্বর ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, আমি প্রেসিডেন্ট থাকাকালে কোনো ধরনের ব্যবসায়িক চুক্তি করা হবে না। ৮ নভেম্বর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তার ব্যবসা কীভাবে পরিচালিত হবেএ নিয়ে চলছে যুক্তরাষ্ট্র থেকে সারা বিশ্বের মানুষের মধ্যে আলোচনা।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথম সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প দেশটির গোয়েন্দা সংস্থার ওপর চড়াও হয়েছেন। একই সঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমের ওপরও আক্রোশ প্রকাশ করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ফাঁস করার জন্য যদি গোয়েন্দা সংস্থাগুলো আসলেই দায়ী হয়, তাহলে তাদের সুনামের ওপর কলঙ্ক পড়বে বলেও মন্তব্য করেন।

এর আগে কয়েকটি গণমাধ্যমে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আসে, নির্বাচনকালীন দল রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছে এবং তার ব্যক্তিগত জীবনের অশ্লীল কিছু ভিডিও রাশিয়ার সংগ্রহে আছে। যদিও এসব অভিযোগের কোনোটিই প্রমাণিত নয়।

তবে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এসব তথ্যকে বেশ গুরুত্ব দিয়েই ট্রাম্প এবং প্রেসিডেন্ট ওবামা উভয়ের কাছেই উপস্থাপন করেছে। কিন্তু এসব তথ্য গণমাধ্যমে আসার জন্য গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর দিকেই সন্দেহের তীর উঠান ট্রাম্প।

সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প এসব তথ্যের বিষয়ে সংবাদ প্রচারের কারণে বাজফিড এবং সিএনএনের প্রতি আক্রমণাত্মক ভাষায় কথা বলেন। তার ভাষায়, এ ধরনের মিথ্যা তথ্য প্রকাশ নাৎসি জার্মানিতেই হতো। আমি মনে করি এটা একটা অমার্যাদকর বিষয়।

ভুল এবং মিথ্যা তথ্য জনগণের কাছে প্রকাশ করা হয়েছে। একগাদা আবর্জনার মতো বাজফিড এটা লিখেছে। বাজফিডকে এর পরিণাম ভোগ করতে হবে বলেও হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এসব বক্তব্যের পর বিদায়ী ওবামা প্রশাসনের মুখপাত্র জশ আর্নেস্ট বলেছেন, গোয়েন্দা সম্প্রদায় দেশের জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ে কাজ করে।  ট্রাম্প খুবই ভুলভাবে তাদের সমালোচনা করছেন।

গোয়েন্দা সংস্থা এবং গণমাধ্যমকে একহাত দেখে নেওয়া ছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে মেক্সিকোর সঙ্গে সীমান্ত দেয়াল তৈরি নিয়েও কথা বলেন ট্রাম্প। দ্রুত তিনি এর নির্মাণকাজ শুরু করতে চান এবং মেক্সিকো পরে এর খরচ যুক্তরাষ্ট্রকে ফেরত দেবে বলেও জানান ট্রাম্প।

ট্রাম্পের বক্তব্যের পর মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট এনরিকে পেনা নিয়েতো এক বক্তব্যে আবারও বলছেন, মেক্সিকো সেই দেয়ালের জন্য কোনো অর্থই দেবে না।