প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

ছোট মূলধনি কোম্পানির দর বৃদ্ধিতে সূচকে প্রভাব কম

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে আগের দিন বড় পতন হলেও গতকাল পতনের গতি থেমেছে বলা যায়। কারণ গতকাল সামান্য ইতিবাচক ছিল সূচক। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় ৪৫ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বাড়লেও সূচকে তেমন প্রভাব ছিল না। এর কারণ গতকাল দর বেড়েছে ছোট মূলধনি কোম্পানিগুলোর। বৃহৎ খাতগুলোর মধ্যে গতকাল সবচেয়ে বেশি চাহিদা ছিল বিবিধ, বিমা, প্রকৌশল আর বস্ত্র খাতের। এসব খাতের অধিকাংশ কোম্পানি ছোট মূলধনি। এছাড়া চামড়া শিল্প ও সিমেন্ট খাতের শেয়ারের চাহিদা ছিল।
মোট লেনদেনের ২৩ শতাংশ বা ৯৩ কোটি টাকা লেনদেন হয় ওষুধ ও রসায়ন খাতে। এ খাতে ৬২ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। সাড়ে ২১ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে এলেও ৬০ পয়সা দরপতন হয় জেএমআই সিরিঞ্জের। বীকন ফার্মার সোয়া ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৭০ পয়সা। ওয়াটা কেমিক্যালের প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১৬ টাকা ৭০ পয়সা। সিলকো ফার্মার সাড়ে আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি এক টাকা ৬০ পয়সা দরপতন হয়। স্কয়ার ফার্মার পৌনে আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর পতন হয় ১০ পয়সা। আগের দিনের তুলনায় দুই শতাংশ বেড়ে প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১৯ শতাংশ। এ খাতে ৬২ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। আগেরদিন লেনদেন ও দর বৃদ্ধির শীর্ষে থাকা ন্যাশনাল টিউবস গতকাল লেনদেন ও দর বৃদ্ধিতে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল। ২০ কোটি ২০ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ১৫ টাকা ২০ পয়সা। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সাড়ে ১৭ কোটি টাকা লেনদেন হলেও ৪৩ টাকা ৬০ পয়সা দরপতন হয়। এছাড়া এটলাস বাংলাদেশের দর প্রায় ৯ শতাংশ, রানার অটোমোবাইলের দর সাড়ে ছয় শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে ৪৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সাড়ে ৯ শতাংশ দর বেড়ে শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসে। স্টাইল ক্রাফটের প্রায় ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় প্রায় ৫০ টাকা। এছাড়া আর কোনো খাতে উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। বিমা খাতে দর বেড়েছে ৬০ শতাংশ কোম্পানির। গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে এক টাকা ২০ পয়সা। বিবিধ খাতে বেড়েছে ৮৫ শতাংশ কোম্পানির দর। এ খাতের উসমানিয়া গ্লাস দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। দর বেড়েছে ১০ শতাংশ। দর বৃদ্ধিতে নবম অবস্থানে থাকা সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের দর সোয়া ছয় শতাংশ বেড়েছে। চামড়া শিল্প খাতে ৬৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে সাত টাকা ৯০ পয়সা। সিমেন্ট খাতে ৭১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..