প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

ছয় বছর ভ্যাট দেয় না এমটিবি সিকিউরিটিজ!

রহমত রহমান: মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (এমটিবি) সিকিউরিটিজ লিমিটেড মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) প্রতিষ্ঠানটির ছয় বছরের বার্ষিক প্রতিবেদন (সিএ রিপোর্ট) পর্যালোচনা করে প্রায় দুই কোটি ২৫ লাখ টাকার ফাঁকি উদ্ঘাটন করেছে। এ ভ্যাট পরিশোধে এনবিআর সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটিকে দাবিনামা-সংবলিত কারণ দর্শানোর নোটিস জারি করেছে। এনবিআর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তবে এমটিবি কর্তৃপক্ষ বলছে, দাবি করা ভ্যাটের বেশি ভ্যাট পরিশোধ করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, এমটিবি সিকিউরিটিজ একটি লিমিটেড কোম্পানি। লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে এর ব্যয় বা কেনাকাটার ওপর ভ্যাট প্রযোজ্য। এছাড়া স্থান ও স্থাপনা ভাড়ার ক্ষেত্রেও ভ্যাট রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি কেনাকাটা বা ব্যয় এবং স্থাপনা ভাড়ার ক্ষেত্রে সঠিকভাবে ভ্যাট পরিশোধ করছে বলে অভিযোগ ওঠে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআরের নির্দেশে কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, ঢাকা (দক্ষিণ) প্রতিষ্ঠানটির ভ্যাট পরিশোধ-সংক্রান্ত কাগজপত্র ও বার্ষিক নিরীক্ষা প্রতিবেদন তলব করে। প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ২০১২-১৩ থেকে ২০১৭-১৮ অর্থবছর পর্যন্ত নিরীক্ষা প্রতিবেদন (সিএ রিপোর্ট) জমা দেওয়া হয়। পরে তা পর্যালোচনা করে প্রতিবেদন দেওয়া হয়।
এ বিষয়ে এমটিবি সিকিউরিটিজ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম মজুমদার শেয়ার বিজকে বলেন, ‘ভ্যাট অফিস আমাদের কাছে ভ্যাট দিয়েছি কি না কোনো চিঠি দিয়ে জানতে চাইনি। তারা হিসাব করে বলেছে দুই কোটি টাকার বেশি ভ্যাট পরিশোধ করিনি। আমরা ছয় বছরে যে ভ্যাট দিয়েছি, তার ৯০০ পৃষ্ঠার কাগজপত্র নোটিস জারির দুই দিনের মধ্যে জমা দিয়েছি। আমাদের যে ভ্যাট দাবি করা হয়েছে, তার বেশি ভ্যাট আমরা জমা দিয়েছি। আমাদের প্রতিষ্ঠানের জš§লগ্ন থেকে ভ্যাট দিয়ে আসছি।’
প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটি লাইসেন্স নবায়ন ফি, ছাপাখানা, স্টেশনারি, এন্টারটেইনমেন্ট খরচ, যানবাহন ভাড়া, অডিট ফি, সিকিউরিটি সার্ভিস, ট্রেনিং খরচ, বিজ্ঞাপন, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, মেরামত বা সার্ভিস, কুরিয়ার ও অফিস ভাড়াসহ ১৪টি খাতে ২০১২-১৩ থেকে ২০১৭-১৮ অর্থবছর, অর্থাৎ ছয় বছরে ব্যয়ের ক্ষেত্রে কোনো ভ্যাট পরিশোধ করেনি। এতে অফিস ভাড়ার ক্ষেত্রে ৯ শতাংশ, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টে পাঁচ শতাংশ ও স্টেশনারি পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে চার শতাংশ উৎসে ভ্যাট ছাড়া বাকি সেবা ক্রয়ের ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রযোজ্য। প্রতি অর্থবছর ১৪টি খাতে প্রতিষ্ঠানটি ভ্যাট দেয়নি। ছয় বছরের মধ্যে ২০১২-১৩ অর্থবছরে প্রায় ৫১ লাখ ১৪ হাজার টাকা, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রায় ৫১ লাখ ৮৯ হাজার টাকা, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রায় ১২ লাখ টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে প্রায় সাড়ে ১০ লাখ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রায় সাড়ে ৫০ লাখ টাকা ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রায় ৪৫ লাখ টাকা ছয় বছরে মোট দুই কোটি ২০ লাখ ৭৭ হাজার ৬৬ টাকার ভ্যাট পরিশোধ করেনি। ভ্যাট আইন, ১৯৯১-এর ধারা ৩৭(৩) অনুযায়ী ফাঁকি দেওয়া ভ্যাটের ওপর দুই শতাংশ হারে সুদ প্রযোজ্য। দুই শতাংশ অনুযায়ী ছয় বছরে মোট সুদ ৪৪ লাখ এক হাজার ৫৪১ টাকা। সুদসহ মোট ফাঁকি দুই কোটি ২৫ লাখ ১৮ হাজার ৬০৭ টাকা। এ ভ্যাট পরিশোধে গত ৩ জুন এমটিবি সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ বরাবর দাবিনামা-সংবলিত কারণ দর্শানোর নোটিস জারি করেছে ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারেট। ভ্যাট আইন, ১৯৯১-এর ধারা ৫৫ উপধারা (১) অনুযায়ী এ দাবিনামা জারি করা হয়। প্রতিষ্ঠানটিকে নোটিস জারির ১৫ দিনের মধ্যে জবাব দাখিল করতে বলা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জবাব দাখিল না করলে মামলাটি আইনানুগভাবে একতরফা নিষ্পত্তি করা হবে বলে উল্লেখ করা হয়।
এ বিষয়ে ভ্যাট দক্ষিণ কমিশনারেটের একজন কর্মকর্তা শেয়ার বিজকে বলেন, এমটিবি সিকিউরিটিজ লিমিটেডের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছে। এছাড়া সিএ রিপোর্ট অনুযায়ী ফাঁকি উদ্ঘাটন করা হয়েছে। তবে সিএ রিপোর্টে সঠিকভাবে খরচ উল্লেখ করা হলে ফাঁকির পরিমাণ আরও বেশি হতো।
উল্লেখ্য, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ২০০৬ সাল থেকে পুঁজিবাজারে ব্রোকারেজ কার্যক্রম শুরু করে। মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট সিকিউরিটিজ লিমিটেড ২০১০ সালের ১ মার্চ থেকে লিমিটেড কোম্পানি হয়। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্য হিসেবে ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর পুরোপুরি কার্যক্রম শুরু করে। প্রথম বছর থেকে সারা দেশে ১৩টি ব্রাঞ্চের মাধ্যমে পুঁজিবাজার সেবা দিয়ে আসছে।

 

ট্যাগ »

সর্বশেষ..