Print Date & Time : 3 July 2022 Sunday 6:32 pm

ছয় বেসরকারি ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি: রিজার্ভ থেকে ঋণ দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ব্যাংকের নিজস্ব অর্থায়ন তথা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে দেশের পোশাক ও চামড়া শিল্প কারখানা সবুজে রূপান্তরের লক্ষ্যে ২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায় ১ হাজার ৬শ কোটি টাকা) ঋণ দেওয়া হবে। দীর্ঘমেয়াদে এই অর্থ ব্যাংকগুলোকে দেওয়ার লক্ষ্যে ‘গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ড ফর এক্সপোর্ট-ওরিয়েন্টেড টেক্সটাইল অ্যান্ড টেক্সটাইল প্রোডাক্টস অ্যান্ড লেদার ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিজ’ নামে একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে। এর আওতায় গতকাল বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংক বেসরকারি খাতের ছয় ব্যাংকের সঙ্গে অংশগ্রহণমূলক একটি চুক্তি সই হয়েছে। শিগগির আরও কিছু ব্যাংকের সঙ্গেও অনুরূপ চুক্তি সই হবে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র জানিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ে ডেপুটি গভর্নর এস. কে. সুর চৌধুরীর সভাপতিত্বে আয়োজিত চুক্তি সই অনুষ্ঠানে ইস্টার্ন ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক এবং সাউথইস্ট ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাসটেইন্যাবল ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক মনোজ কুমার বিশ্বাসসহ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এস. কে. সুর চৌধুরী বলেন, অংশগ্রহণকারী ব্যাংকগুলো দীর্ঘমেয়াদি এই তহবিল যথাযথভাবে ব্যবহার করে শিল্প খাতের উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি রফতানি খাতের পূর্ণমাত্রার সম্প্রসারণ ঘটাতে সক্ষম হবে। তবে এই উন্নয়ন প্রচেষ্টায় যাতে পরিবেশগত কোনো ঝুঁকির সৃষ্টি না হয়, সেদিকে কঠোর নজর রাখার ব্যাপারেও সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের মধ্যে টেক্সটাইল ও টেক্সটাইল প্রোডাক্টস খাতের রফতানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তবে পরিবেশ ও সামাজিক পরিবেশগত ও সামাজিক পরিপালনের মান উন্নয়ন ছাড়া এ লক্ষ্য অর্জন কষ্টসাধ্য হবে। এটাকে সম্ভব করতে সরকার টেকসই উন্নয়নে গুরুত্বারোপ করেছে। এ কারণে পরিবেশের জন্য সংবেদনশীল উৎপাদনশীল খাতের অর্থায়ন নিশ্চিত করা খুবই জরুরি। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশের রফতানিমুখী টেক্সটাইল ও টেক্সটাইল প্রোডাক্টস এবং লেদার

খাতের ‘গ্রিন ট্রান্সফরমেশনে’র জন্য ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ প্রবাহ নিশ্চিত করার জন্য ২০০ মিলিয়ন ইউএস ডলারের তহবিল গঠন করা হয়, যা বাংলাদেশ ব্যাংকের নিজস্ব উৎস তথা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে গঠিত। এ তহবিলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো বৈদেশিক মুদ্রায় দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন সুবিধা। নির্ধারিত মানদণ্ডে উত্তীর্ণ ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে টেক্সটাইল ও টেক্সটাইল প্রোডাক্টস এবং লেদার খাতে এ সুবিধা দেওয়া হবে।