জলবায়ু পরিবর্তনে সচেতনতা জরুরি

আধুনিক বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তন সবচেয়ে বড় সমস্যা এবং জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের কারণ। বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের মতো প্রভাবগুলো আমাদের জীবনকে বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করছে এবং এর ফলে আমাদের জীবন ও চিন্তাভাবনা পরিবর্তিত হচ্ছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে, যার কারণে মেরু অঞ্চলের বরফ দ্রুততার সঙ্গে গলছে এবং সমুদ্রের স্তর ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদের দেশেও প্রতি বছর এই গ্রিনহাউস প্রভাবের কারণে বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, নদীভাঙন, জলোচ্ছ্বাস এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটছে। এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে স্বাস্থ্য, খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট তৈরি হচ্ছে, যা আমাদের মাঝে এক বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে পৃথিবীর কোনো অঞ্চলই রেহাই পাচ্ছে না। সম্প্রতি চীন, ভারত ও জার্মানিতে কয়েক মাসের মধ্যেই নজিরবিহীন বর্ষণে বন্যা ও ভূমিধসের সৃষ্টি হয়েছে এবং উষ্ণতার প্রভাবে দাবানল আর খরা চলছে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায়।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আমাদের দেশে ঋতুর ধারাবাহিকতা বজায় থাকছে না। কার্বন ডাই-অক্সাইড, নাইট্রাস অক্সাইড ও মিথেনের পরিমাণ বাতাসে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং গ্রীষ্মে অতিরিক্ত গরম, শীতকালে অতিরিক্ত ঠাণ্ডা বা উষ্ণতা, বর্ষাকালে পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হওয়া বা অতিবৃষ্টিতে ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, অথবা ফসল উৎপাদনে বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। ফসলি জমি পোকামাকড় দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছে এবং ফসল নষ্ট হওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে। তাই আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কৃষির ওপর নির্ভশীলতার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন হয়ে ওঠে অনেক বড় প্রভাব। জলবায়ু পরিবর্তনের তাপমাত্রার তারতম্যের কারণে এটি আমাদের জীবনে নানাভাবে প্রভাব সৃষ্টি করছে এবং আমরা জ্বর, সর্দি, কাশি, স্ট্রোক ও ডিহাইড্রেশনের মতো বিভিন্ন রোগে ভুগছি।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব সমাজের প্রতিটি মানুষের জীবনে প্রত্যক্ষভাবে প্রভাব ফেলছে। তাই জলবায়ু পরিবর্তন রোধে সমাজের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে, এর অসুবিধা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে এবং কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার মাধ্যমে একটি সুন্দর বাসযোগ্য পৃথিবী গড়ে তুলতে পারলেই এটি আমাদের জন্য অন্যতম সেরা প্রক্রিয়া হতে পারে।

রুবাইয়াদ ইসলাম

শিক্ষার্থী, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

সর্বশেষ..