পত্রিকা শেষ পাতা

জাতীয় দিবস হিসেবে উদ্যাপিত হবে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রথমবারের মতো জাতীয় দিবস হিসেবে উদ্যাপন করা হবে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ। এ উপলক্ষে কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠান এবং দেশব্যাপী জেলা-উপজেলায় ব্যাপক কর্মসূচি নেয়া হয়েছে।

গতকাল শনিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব বদরুল আরেফীন, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী প্রমুখ। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রেক্ষাপটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের তাৎপর্য অনেক গভীর। দিনটিকে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস হিসেবে ঘোষণা এবং দিবসটিকে ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত হিসেবে পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এ আয়োজন উদ্যাপনে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে সংযুক্ত করা হয়েছে। এদিন সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানানো হবে। কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠান বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ৭ মার্চ বেলা ৩টায় আয়োজন করা হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কেন্দ্রীয় আয়োজনে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি থাকবেন মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আ. ক. ম মোজাম্মেল হক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জš§শতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখবেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. বদরুল আরেফীন। অনুষ্ঠান স্থলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনধিক পাঁচশ’ অতিথির আসন গ্রহণের ব্যবস্থা রাখা হবে এবং অন্য অতিথিরা অনলাইনে উপভোগ করবেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদ্যাপনের লক্ষ্যে কর্মসূচি নেবে। ঢাকাসহ সব জেলা ও উপজেলায় জেলা প্রশাসন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির মাধ্যমে নানা আয়োজন হবে।

এ আয়োজনের ব্যয় নির্বাহের জন্য ২০২০-২১ অর্থবছরে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে জেলা পর্যায়ে এক লাখ টাকা ও উপজেলা পর্যায়ে ৫০ হাজার টাকা হারে সর্বমোট তিন কোটি ১০ লাখ টাকা ইতোমধ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। কভিড পরিস্থিতিতে জাতীয় কর্মসূচির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে কর্মসূচি ও অনুষ্ঠান আয়োজন করবে। জাতীয় অনুষ্ঠানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে সব সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ ও ইউপিসমূহে যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ জাতীয় দিবস উদ্যাপন করা হবে। দিনটি উপলক্ষে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় আলাদা আলাদা কর্মসূচি নেবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ভাবাদর্শে ধর্মনিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক ভাবধারায় সুখী-সমৃদ্ধ, ক্ষুধা-দারিদ্র্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার এখনই সময়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও ৭ মার্চের ভাষণের সুবর্ণজয়ন্তীতে এটাই আমাদের দৃঢ় প্রত্যয় ও অঙ্গীকার।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..