সারা বাংলা

জাহাজভাঙা শিল্পকে নিরাপদ করার আহ্বান বিলসের

শেয়ার বিজ ডেস্ক: জাহাজভাঙা শিল্পকে নিরাপদ কর্মক্ষেত্র হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ডেনিস ট্রেড ইউনিয়ন ডেভেলপমেন্ট এজেন্সির (ডিটিডিএ) সহযোগিতা ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) উদ্যোগে একটি পর্যালোচনা সভা গতকাল সকাল ১০টায় স্থানীয় হোটেল গোল্ডেন ইনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিলস জানিয়েছে, জাহাজভাঙা শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন ফোরামের আহ্বায়ক তপন দত্তের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক ও জাতীয় শ্রমিক লীগের সহসভাপতি শ্রমিক নেতা শফর আলী, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভাপতি শ্রমিক নেতা এএম নাজিম উদ্দিন, বেসরকারি উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইপসার প্রোগ্রাম ম্যানেজার মোহাম্মদ শাহিন, পরিবেশ-বিষয়ক সংগঠন বেলার কর্মকর্তা ফারমিন এলাহী, জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা শফি বাঙ্গালী, জাহাজভাঙা শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন ফোরামের কোষাধ্যক্ষ রিজওয়ানুর রহমান খান, ইন্ডাস্ট্রি অল শিপ ব্রেকিং সেক্টরের সমন্বয়ক শরীফুল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিলসের কর্মকর্তা ফজলুল কবির মিন্টু। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাহাজভাঙা শিল্প খাতে বিলস-ডিটিডিএ’র উদ্যোগে বিগত দিনের কার্যক্রমের রিপোর্টিং ও ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা উপস্থাপন করেন ফজলুল কবির মিন্টু।

বক্তারা বলেন, দীর্ঘ চার দশকের বেশি সময় ধরে জাহাজভাঙা শিল্প খাতে বাণিজ্যিক কার্যক্রম চললেও অনিরাপদ কর্মপরিবেশে শ্রমিকরা এখানে কাজ করেন।

বক্তারা জানিয়েছেন, এ খাতে প্রতি বছর গড়ে ২০ জনের বেশি নিহত হন। চলতি বছর এরই মধ্যে সাত শ্রমিক নিহত ও ১৫ শ্রমিক আহত হয়েছেন। কিন্তু দায়ী ইয়ার্ড মালিকদের বিরুদ্ধে সরকারি প্রতিষ্ঠান নির্বিকার। নেতারা শ্রমিক নিহত ও আহত হওয়ার জন্য দায়ী শিপইয়ার্ড মালিকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

সভায় শ্রমিকদের নিয়োগপত্র ও পরিচয়পত্র দান, সরকার ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়ন, চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ বন্ধ করা, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী রাতে কাজ বন্ধ রাখা এবং অতিরিক্ত কর্মঘণ্টা কাজ না করানোসহ শ্রমিকের পেশাগত ও স্বাস্থ্য নিরাপত্তা এবং কর্মদক্ষতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার দাবি জানানো হয়েছে।

একই সঙ্গে সব ইয়ার্ডে দক্ষ সেফটি অফিসার নিয়োগ দেয়া এবং শ্রমিকদের মানসম্পন্ন ও উপযুক্ত ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার নিশ্চিত করার দাবিও জানানো হয়। সভায় এক বছরের বেশি সময় শ্রম আদালত নিষ্ক্রিয় থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..