কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

জিএসপি ফাইন্যান্সের সাড়ে ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক: আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের কোম্পানি জিএসপি ফাইন্যান্স কোম্পানি (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ২৫তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) গত বুধবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় জিএসপি ফাইন্যান্সের শেয়ারহোল্ডাররা ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য সাড়ে ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ অনুমোদন করেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, এর আগে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ছয় শতাংশ নগদ এবং সাড়ে চার শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু এজিএমে আগের সিদ্ধান্তে পরিবর্তন এনে বিনিয়োগকারীরা সাড়ে ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দেওয়ার অনুমোদন করেছে।

আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৪৬ পয়সা এবং ৩১ ডিসেম্বর তারিখে শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ৪৯ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে দুই টাকা ৪০ পয়সা ও ২২ টাকা ৮৪ পয়সা। আর এই হিসাববছরে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে তিন টাকা ৭৬ পয়সা, আগের বছর যা ছিল ৫৭ পয়সা।

এর আগে ২০১৮ সালে কোম্পানিটি ১৮ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। আর তার আগের বছরে যা ছিল সাড়ে ২৩ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ।

এদিকে সর্বশেষ কার্যদিবসে ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর আট দশমিক ২৪ শতাংশ বা এক টাকা ৪০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ১৮ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৮ টাকা। দিনজুড়ে ৩৭ লাখ ১৭ হাজার ১৬৬টি শেয়ার মোট এক হাজার ২৪৩ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ছয় কোটি ৫৩ লাখ টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ১৬ টাকা ৬০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ১৮ টাকা ৫০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ১১ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ১৯ টাকায় হাতবদল হয়।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের কোম্পানিটি ২০১২ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। ২০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১৪২ কোটি ১৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১৪৮ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট ১৪ কোটি ২১ লাখ ৪৩ হাজার ৫১৬ শেয়ার রয়েছে। কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে ৩৫ দশমিক ৫১ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ২২ দশমিক ২৬ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে দুই দশমিক শূন্য পাঁচ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে বাকি ৪০ দশমিক ১৮ শতাংশ শেয়ার।

সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য-আয় অনুপাত ১২ দশমিক ৩৩ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতেও ১২ দশমিক ৩৩।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..