সারা বাংলা

জেলা প্রশাসকের বাতিলকৃত একসনা বন্দোবস্ত উচ্চ আদালতে স্থগিত

প্রতিনিধি, ফরিদপুর : ফরিদপুরের খলিলপুর বাজারের একতা সুপার মার্কেটে জেলা প্রশাসক কর্তৃক বাতিলকৃত একসনা বন্দোবস্তের ওপর উচ্চ আদালত স্থগিত আদেশ প্রদান করেছেন। গত মঙ্গলবার বিচারপতি মো. খাসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. মাহামুদ হাসান তালুকদারের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ প্রদান করেন।

জানা যায়, সদর উপজেলা ভূমি অফিসের অধীন ১৪ নম্বর খলিলপুর মৌজার এক নম¡র খাস খতিয়ানে অবস্থিত সরকারি সম্পত্তি ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৫৭৯ নম্বর দাগের আট শতাংশ জমি মোট ২২ নথিতে একসনা বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। সে সময় ২২ নথীয় দখলদার মৌখিক অনুমতি সাপেক্ষে পাকা ছাদ দিয়ে তাদের দোকানঘর নির্মাণ করেন।

গত ১ অক্টোবর ‘হাট-বাজার নীতিমালা, ১৯৯৭’ ভঙ্গ করে ছাদ নির্মাণ করে দোকানঘর উত্তোলন করায় অবৈধ ঘোষণা করে এ মার্কেটের জমির একসনা বন্দোবস্ত বাতিল করেন জেলা প্রশাসক, যা ফরিদপুর সদর উপজেলা ভূমি অফিস, প্রসেস নং- ৭৮/১(২২) নম্বর স্মারকে উল্লেখ আছে। এ সময় দোকান মালিকরা নিজেদের বৈধতা ফিরে পেতে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন দাখিল করেন। পরে উচ্চ আদালত শুনানি শেষে আগামী ছয় মাসের জন্য ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের বাতিলকৃত একসনা বন্দোবস্তকে স্থগিত করে আদেশ প্রদান করেন।

উচ্চ আদালতের রিট পিটিশনার রায়হান সরদার চুন্নু বলেন, ‘আমরা ২০১৪ সালে অনুমোদন নিয়ে দোকানঘর নির্মাণ শুরু করি। সে সময় আমাদের বাজারের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রশাসনের কাছ থেকে মৌখিক অনুমোদন নিয়ে পাকা ছাদ দিয়ে মার্কেট নির্মাণ করি। জেলা প্রশাসন আমাদের মার্কেটের বন্দোবস্ত বাতিল করলে আমরা উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করি। শুনানি শেষে জেলা প্রশাসনের আদেশ স্থগিত করে উচ্চ আদালত আদেশ জারি করেন।’

জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, ‘খলিলপুর বাজারের মার্কেটটিতে পাকা ছাদ দিয়ে স্থাপনা করায় হাট-বাজার ব্যবস্থাপনা নীতিমালা লঙ্ঘন হয়। পরে আমরা তাদের বন্দোবস্ত বাতিল করি। দোকান মালিকদের উচ্চ আদালতে রিটের পরে স্থগিত আদেশের বিষয়ে আমি এখনও অবগত নই। এমনটা হলে আদেশের ওপর আমরা আপিল করব।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..